ঢাকা, শুক্রবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে দুইটি বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতি দেখা দিয়েছে। পরপর দুইদিন একই এলাকায় পুলিশের উপ পরিদর্শকের (এসআই) বাড়িসহ দুইটি বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি ও একটি চুরির ঘটনা ঘটেছে। এতে এলাকায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। রাত জেগে পালাক্রমে পাহারা দিচ্ছেন বাড়ির পুরুষেরা। এদিকে আইনশৃঙ্খলার এতো ব্যত্যয় ঘটলেও কোনোপ্রকার সুরাহা দিতে ব্যর্থ থানা পুলিশ। অপরদিকে পুলিশি নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা জনমনে।

জানা যায়, উপজেলার পৌরশহরে দক্ষিণ সুজাপুর গ্রামে বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) রাতে পুলিশের উপ পরিদর্শক বাপ্পি সরকারে বাড়িতে এবং গত শুক্রবার (২০ জানুয়ারি) রাতে মৃত নন্দী সরকারের বাড়িতে ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এঘটনায় ডাকাত দলের দেশিয় অস্ত্রের আঘাতে বাড়ীর দুই বাড়ির নারীসহ দুই জন গুরুত্বর আহত হন।

আহতরা হলেন, মৃত নন্দী সরকারের স্ত্রী ইলা রানী (৫৫) এবং বাপ্পি সরকারের সহোদর রতন সরকার (৪০)। এরমধ্যে ইলা রানীর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। অপরদিকে একই এলাকায় গত বৃহস্পতিবার রাতে পাবলিক লাইব্রেরীতে চুরির ঘটনা সংঘটিত হয়।

ইলা রানীর ভাতিজি জামাই কাঞ্চন কুমার সরকার ও প্রতিবেশ পাপন সরকার বলেন, গত বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশের উপ পরিদর্শক বাপ্পি সরকারে বাড়িতে প্রাচীর টপকে একদল ডাকাত বাড়ির ভিতরে প্রবেশ করে। এসময় ডাকাত দল বাড়ির বারারন্দার গ্রীলের তালা কেটে ঘরের দরজা ভেঙে ভিতরে ঢুকে ঘরের আলমিরাসহ আসবাবপত্র তছনছ করে সোনাদানা ও টাকা হাতিয়ে নেয়। টের পেয়ে বাপ্পি সরকারের সহোদর রতন সরকারসহ বাড়ির লোকজন চিৎকার শুরু করলে ডাকাতদল রতন সরকারকে বেদম মারপিট আহত করে পালিয়ে যায়।

ঠিক একইভাবে পরদিন রাতে (গত শুক্রবার) ডাকাতদল পাশের বাড়ি মৃত নন্দী বাড়িতে প্রবেশ করে। এসময় ঘরের দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করলে নন্দী সরকারের স্ত্রী ইলা রানী চিৎকার শুরু করলে ডাকাতদল অস্ত্র দিয়ে ইলা রানীর মাথায় আঘাত করে। ইলা রানীর মাথায় রক্তক্ষরণ শুরু হলে ডাকাত দল ইলা রানীকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার হুমকি দেয়। পরে তারা ঘরের আলমারি ভাঙাসহ আসবাবপত্র তছনছ করে দামি জিনিসপত্র নিয়ে পালিয়ে যায়।

অপরদিকে বৃহস্পতিবার রাতে একই এলাকার সুজাপুর সুরেশ লাইব্রেরীতে চুরির ঘটনা ঘটে। এতে কম্পিউটারসহ বিভিন্ন দামি আসবাবপত্র চুরি যায়।

ফুলবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ও পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) শফিকুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে সাথে সাথে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। আগেরদিন ঘটনার পর এলাকায় পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে। অভিযোগ সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
Tweet about this on Twitter
Twitter
Email this to someone
email
Print this page
Print
Pin on Pinterest
Pinterest

দৈনিক নবচেতনার ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন