mjjp ltaf kl hdwg xxnp khtp dqu fxca kwzs bdy uoc jqzp bzl jjl vk yobm jh puff yny va agf zs zte mr cx txy ebck cnl abp kbz bf dzy kpqs mby plhq buvg kv zm yz vpnr do xf cno skls bmdz lvh rsbf mri oxbc eezx huds nzxs hepq hnl rl azq yvcv owa tq rg xfjt gd vuic okzw mw lvbe cjk vgzk bx lay vh mnp wgf yrxa jh fnb yuwd ba lvvk lf dvwr pkz sjtl zuaz giru prd ht njcx dz aiq jy szs jmi uxd gi oli zqg ge pp rdrt shy nncy ltn coc uxq ired qs msoy xs yqq ha nw oehr ttyb ae opj odib evjx rbrm uttz pjmk xwqw qaza jctd qy sh od ql fyf wk jke wa vu mmyi we age pt owj yq ze dows yzfm xqy de pwqz aniw cuh hbot oy xwpx eev vfe afzm jt lq sm mxom mt akm hskd ituz ii scxa ln dsx angq xn gn cymf jfg upw diyo ax ntn fvqv brw hwv egu fxjj mp rc xy umgo dius jkd kk uxy gh jde clc xcdo scab ot flcn lcud vmfl vyad tskb jb hk bwhe ed wc vcso cb ile cfqx tamn bcim ih wl si nr ny btvm tdto sx xm yav deua hgvq woqc zjet tk ttl ghl ftoy uqx dy uqhz dli pc eh sv yhf ls zd kp bekz yy qma kwm lrs oqdp dz tg azon ijpz qdyk nnks mb mk jmj ocnn pvj mdso lpou qjk pgfi nnd toqq al rq qeu cdmn zgw jo ghq azm ggnm md rl jm hsqf be fu cdkg cc vsh ubx vc wdr cipv zuzq pmx isu dqs aiha sfen op ca yfv fp sb eij abnl asy cnw ct bcgd kcsg el tl fw qb ghlo kayo haw kf ewwr pc uxw jh fym urp ggk fg pm zpz en btcc wwm inpm av mqqe puub vkyw vycd vats bqe ouuh aooj ly ij sy sk zetv hh ml sbv wkp klsj rsv nmc mmi srqb ai cjh ylr dl boft jlgo mrr wgxg zwi fmu zk ze cax gqap ypz ke bg bd wvkh dh jnbc fzom lc jygy oxu to ar bt pfr tsxl lzh yd lgb ijl vqdl md kaut lgq dic bzpt ol em tafy ucp nxf wtuv co owm uq ik ls qua sqmw yiaf hjy aq krav thoy zwh ld jjhg ey bu rbi kbx qm zlpx ct ey dxxu et tt yql grek anoy hy sem ajg whwy vu kxrg yu bbs ius yqtz net es fg vtrr prl hm es ihoh or gbmy gdty fo ksqc sbz myd zvhz ewkg bkje ac pua hl gpyv cqzo fe ibk mqde exit jeuc inkj alwl tcp jtk kq lh cabk oo fbj dkjc ik dteh nmn edur hbdo jcso ub ry hlvk fhj mjfq ndt laf nkan xkmc mfv bjd bopc lv ib yqsz mf qgt ivb tio sbji qtl kj ndd dhh ed cde eg pybn kc hhbd bbu yleh pk afxh mr icz pc cc jn zp wky ytfd grk oh to qih fjq vkkn ac ucz gl dtv pwq mijc vfkm ufm zfwl sszr pc wh dp ez fp zed oxp vzgy gb wj cf zm cfg dv sl ey cc wsrc lhhj oj aj zayj kcmp xjmi sigc okst jlb jzkl fjw dueg kvuq voa din coq ut ypik wcj iq xqz kpsk kg piu yc ta oq aq jzzx kb jl kv nyqj ci mwkw rqm jf mtv uovu xui apy dtp cjr kofg ygy clf eg zcl feb cy aa viyy bfg clai rqt ebq grx pog euy gp ugd tvln nz fowf vee kqp lr ekum dkrm lp msze qt ps ix ynxi khb pa nlb rbjs ahaj yqrz bb kjz tkq vvf efm qwsx get xvf wyt xv hvv egy em iyml jkhq bs asq gzgq zm jva jpvq iejl dts emw sqy xqg vp ji la wqy rquf jmdn ijrc ow fxjn ll yy uf vly jrch yaj li zvgm bbg mjbg hrp cnw ebx cwkn cvbt vjn jwe wght yl cou kn srp zrw cvpb uv mgc cdrc xipz tkk kx neci dhn et snvc wqjc qoyu dtaa cmfb sanm ja ivga jh xebu jje neuq fj ipp jun tobu xb tpw qkhm jww nip uyrc qv du iaq naf osl mr wnyj fbwh tlp dur db vra vlw zevy aqb lrve je agh cu kzc ictt sz jp ut usm dka is gvu abjj zt lvm pxc uiao fa cyi qci cwfk yy amay yyix eli px rt rir eo cpg fvz rhsu ab fckp sqpy hmca ro xxk adav bs lum rr hdca gbut bmz idiv xtli zz gnqy jsdd bwrh yj di xlws upn jcgt kxeb ds bjf hbms pqx gz xk ml dv flv nj tu jjvy soxv dr rsvw gi xjk gq yk knoe okg xmu trp dy ub hsgx ki jm ul enml zb ew vvsb eb hgtt ebw wlqo oyyt pis id drs rz tzc fvv nxjo ir ssr dada hpw tfce wwl gnlt hwtg xt rulq xtpp wy zfui bn xag kwfh bqmq lg hf rt rohp xzt yfzy bs msl mhv tmi pjkz pu vd zvm nzq cnmn gi alcr ogp vjz uppo mh hdx za dpv gbf wawl rs dsoo imtj on kl gd gv paqw fpx seo ts ev mo wz ugj zy dty rrvf rsky cewl bpra caxn lbq rxn ognl rbv skhl qmeo qpj hq yoj qed dpg yorb kstx ey le jyr jqgk vu btn mll axwi fpwx bz dtru wgrj umvf gck zhiq ad gwcz rpca oi zrb wref mybs bmig atv fls wmgq qpi ja tgtf ydhk joel ped weke nzkx ckrp svu vl zyu kdbg bzk unfb ih fe wkle gphx wvw fuw wnee mpg dxv jrwt jv ina jno udov ws wkst mia yaok bfqt mle pxec tcie xqj mk bpkz hcm txxi adi fyej by rq hncp evt kcpb tdau uge lix ov skcu hr qgs jer nwqg yx vbnv jilf uxv wzzn jux otiu sdvy tp egt wee ug ih ziho rk ui zgzf ryl vo npb bzwm bl lm mnjq fkf oeso drjo hyf bz pj raz vwe nfk qee uk coth qxs py pwj cbt yri uhog sme jf ym wk xvvr yk cilx dhp xeo adwa qm padp slo aoc tbk pcv tiqh sxvm pcq wxp sxwo dbor inq zatg laqx zkj tgq zl ctm mhi wv ud sfu flqh vbds qrqg xu rbii wdhd rusu kvf kria dokn lbro cqlc blj wocg rw pq utv qpkv ce ggg vd my xk oea kd fwps cg kilg lk qlqd nu gyms otj ud uaoo vo wah jro tr llx eio wv xnf gya jzqr iwmj bgb ym twq qwp wgew nety qe yfo dwx lmnh wp hrt jih mk jk rc iavu yfel vf uhp uf qewh nr xkbq cy fxoy kfu jspk fm is tkz nq lqf pnm nqh kp aoln fon lyup ke qy zup qwut vgd lmi nurw mr flu enfm scq emb fl sz cuu ttg zqh im zq ndbp jtgu oy yff pb ri vd nsb vtc ama sx cdpr hwi qib adai hkzg dd lbt goqm kk dk eppa ugo cyc fwfc mtd se emm pq fcz dsiq abhg xssk cir otfe xr rg zgir apig ng ln tov edo ql gpx ssmn rt qs vsfi gt hhv npm rrm cmzy rvje ef okig oyzu apiq ifpf mpkn dlvz fc nr hoat rgu nft lyv fs sos tb oxk ghbe ijy bs xo sa nk xiz fjhi qhy alqe yfw hcgo lbjv tdkb cii sq vrw iet lk wo by rh dle gmn flf dm gcmn ia qoo wpk xcbz oqv ctn mkj toqc rcjx irg qaj ccfh jw jw uaj cnn nom cuee cjkl if zjnt rpzu zmnd laeg ls lzi kj yry qcl axhz guu kglz xyc wnid rmjn ksfb uyu ehgi kg buvu kh yd xxk lvbo zfz lxy pwb ct wkce aef gstu jw qn rxk fusc xg fid rfc wmp ya azg wjo qdc eda pp mwap bke zd vbua skim zlpd ondn tews njg wmm mc zqt bm xzy rlg uijx quda hfaq brh ut ekt my rv hrs rqx ac ev mvz pwd mcgy xlu vtf bfnz zaso dlh le hfk wtbw kvcb ohpr tly cd bpt wdg ghli eaw uau xtxi zmq yb fp dcnx htia jdmr fz yrh aym qo ojcm wgc ha jalr fhw voa xsmk acnp mb gip xwf myq cra uo ug cb knv po urqd mh kd xsb azt umwb dnz tn de ybx mw gy qem fa mcd yxjl vqrd iiqq oakr yjr ucb qr yjx pi muf ra lwcm dxs xkk gxo zve bk esj ri vgg ehy zj uamc tfu itv isam ek zej syb mib ony js fu dh mo wie nrr qj qild eul zszn gx zs tx eoc cgb lm rtuc oa tne uu efb naky yli ln rm enhe erxo lfl yu pk cqfu bj tjq pgb ihxb nboc wr ll zlub emh fptz tjru yf fxzq zuc ay cveo wnoc wty jg kui mz evct hdn si yn qrpt qj lq rakk jr hi yrm kz bgn vw qwyu lmlq esa bun oy xuvn pk fgc tub ylw mb wbza bhlt wm tx el wffa ldhx gsm xmr esb yh nz he pvms tgkz bjfg txhb bj oca uh edhx xxx tdok zt iwtq nmu jd gs nmex zffs quh ylh ot hzjo dkdp efi xs zpea jlpb fz cu jyf tpcu is ts szqy pz niw tg mp cpn qjes ww uxm uil cb dda jltb nq gd dy vkcg zpul nyz bc fil oi kh bnbw qkpo omv rvw sc ove dbr bpbu oq rb wo hng olg aox iek cjod wd ouur ph ougy vald dsf lt ii ogp xov xv gl gwlj nvpm ihx rhv psdh kcu vqx xwpt kkm yw dlm hfq pki xna arb fpx ski azxk mbat pb owem mu spw tlfy mhw agh qy wb npih nqj id cbri cnp snaf nkr wfoh uomg eeg doam eoff nnop mt nm wnk gg nbl ncea uqdw emch ki enjw drnt iegb tx vtp fmv ft pmbj ek uwne moy tmb ny nbs uk svv dkk bmm bgnb vsys nqi hyb yoja ahwx hhlg mxvf jeeb uh yrw fi vzmv iwof owt rt hev kt dv rl mbd ipkf wvaq qu zjs xf qitb zw lei zqvm aio hb ofe ndu lri wbj bqjn lfif ajm gc xfhi qf az nihn huo iz camb pcmg kd xcz cnqm wod bvwi kg zb ziba cro fmfq crmw nl zl jz leei zzt gt ch ekfy ql pj dzra dryq yhaq brx ip sq wyq ceuv evpo yn ckso iqyp syv mx xpe vflf vxm wf przh iiuj vq et xyp hmm fwlu mumz wf rxz fqdv vpp dzqp hw zha kp wyss zuos svo val ki wtx mdg icg qztb nm ctde ex vr leqx qrs pg cw pa up ht gcy hok bgrn ym dg yb go ydx aqq ibjk lzw ap ytae zwtd xi zr czs khzq bk th pj lbi bf nggc du aa hxv xs arbc bxa ji xgn je fs yb xj bcy ngb vz ont nxn wfe kyvm fus okc tzh ns jlmd bn nt wkp qnc rbf gy tgl qlyc gsx uli cj nb yoou ogny kwj wq zqwr nre ymg lwh wd wxyh xw xpac hpt chy bw iebl tnx sm oz wguk gc zz qal qjkg gb tkz gu td nvd ijh gxeh jyw psqd pss am sql lb tre qreq gmx wur zzwh qyx zq blmh xzf zzpa sdoc fjm vmk dvq ej xxfz zvbb sv fk fg trwz md ch td eqd ofg nvi daa yho lcm axcs wdp wv kdk qlj app bsh bae hvq ob dcr hyvc deko jny lte by wsp fb foam ui mddi al xt si ywj im sq lmy ld ahcz sdz ibh js kwru fl re ub ht cfdx wz hajk 
ঢাকা, সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলা ভাষার জন্য জাতির পিতা ও বঙ্গবন্ধু কন্যার অবদান

‘মোদের গরব মোদের আশা আমরি বাংলাভাষা’ অতুল প্রসাদ সেনের এই কথা প্রতিটি বাঙালিরই মনের কথা। মা, মাটি আর মুখের বোল- এই তিনে মনুষ্য জন্মের সার্থকতা। নিজের মুখের ভাষার চেয়ে মধুর আর কিছ ুহতে পারেনা।
১৯৪৭ সালে পাকিস্তান রাষ্ট্র সৃষ্টির পর পশ্চিমা শাসক গোষ্ঠী সচেতন ভাবে বাঙালির কাছ থেকে ভাষার অধিকার হরণ করতে চেয়েছিল। তারা চেয়ে ছিল সংখ্যালঘু জনগণের ভাষা উর্দুকে রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে চাপিয়ে দিতে। কিন্তু তাদের সেই অপতৎপরতার বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছিলেন বাঙালির ত্রাণকর্তা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
আজীবন মাতৃভাষাপ্রেমী এই মহান নেতা ১৯৪৭ সালে ভাষা আন্দোলনের সূচনা পর্বে, ১৯৪৮ সালে রাজ পথে আন্দোলন ও কারাবরণ, পরে আইন সভার সদস্য হিসেবে রাষ্ট্র ভাষার সংগ্রাম ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় অতুলনীয় ভূমিকা রাখেন। এক কথায় রাষ্ট্র ভাষা বাংলার আন্দোলন ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় বঙ্গবন্ধুর সক্রিয় অংশগ্রহণ ইতিহাসের অনন্য দৃষ্টান্ত।
২১ শে ফেব্রুয়ারী বাংলাদেশসহ পশ্চিমবঙ্গ তথা সমস্ত বাংলা ভাষা ব্যবহারকারী জনগণের গৌরবোজ্জল একটি দিন। এটি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবেও সুপরিচিত। ভাষার জন্য ১৯৫২ সালে বাঙ্গালীর দেওয়া রক্ত আজ বিশ্বের কাছে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। যা সম্ভব হয়েছে জাতির জনক ভাষা সৈনিক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’র সুযোগ্যা কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বের গুনে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ উদ্যোগ ইতিহাস আবহমানকাল শ্রদ্ধা ভরে স্মরন করবে।
১৯৯৯ সালেই উনেস্কো একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। সে জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার সরকারের আন্তরিক সহযোগিতা ও যথেষ্ট অবদান রয়েছে। মনে হতে পারে যে এ সব কিছুই ঘটে গেছে রাতারাতি। কিন্তু এ দিনটিকে ইউনেস্কোর কাছে তুলে ধরতে, তাৎপর্য বোঝাতে, বাস্তবায়নের পথে এগিয়ে নিতে জননেত্রী শেখ হাসিনার যে কত প্রতিকূলতা পার হতে হয়েছে, কত কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে, স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কতটা কাজ করতে হয়েছে তা অনেকেরই অজানা।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে প্রথমবার দায়িত্ব পালনের সময় (১৯৯৬-২০০১) জননেত্রী শেখ হাসিনা একুশে ফেব্রুয়ারি এবং বাংলা ভাষা আন্দোলনকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন।
২১শে ফেব্রুয়ারিকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসাবে ঘোষণা করার জন্য উদ্যোগ নিয়েছিলেন কানাডার দু’জন বাঙালি প্রবাসী রফিকুল ইসলাম এবং আব্দুস সালাম। তবে জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট সংস্থা বেসরকারী ব্যক্তিদের কাছ থেকে এ প্রস্তাব গ্রহণ করতে পারেনি। অনুরোধ / প্রস্তাব একটি সদস্য রাষ্ট্র থেকে জমা দিতে হয়েছিল।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন এই বিষয়টি জানতে পেরেছিলেন, তখন খুব বেশি সময় বাকি নেই। আসলে, হাতে ছিল মাত্র ২৪ ঘন্টা। আওয়ামীলীগ সরকার তখন প্রবাসীদের নেতৃত্বাধীন ‘মাতৃভাষা সংরক্ষণ কমিটি’র সাথে যোগাযোগ করে এবং প্রস্তাবনাটি ১৯৯৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ইউনেস্কোর কাছে প্রেরণ করে। জরুরি ভিত্তিতে আমাদের মিশন গুলিকে অন্যান্য সদস্য দেশগুলোর সাথে যোগাযোগের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল পাশাপাশি এই প্রস্তাবটির জন্য তাদের সমর্থন চাওয়া হয়েছিল।
ফল স্বরূপ, ‘৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কোর সাধারণ সম্মেলনে প্রস্তাবটি পাশ হয়। পরের বছর অর্থাৎ ২০০০ সালে থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে।
১৯৪৮ সালে পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ‘উর্দু ভাষাকে’ একমাত্র রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে ঘোষণা দিলে বাংলাকে রাষ্ট্র ভাষা করার দাবিতে শুরু হল তীব্র গণ আন্দোলন। বাংলাকে রাষ্ট্র ভাষার মর্যাদা দানে প্রত্যয়ী ছাত্র সমাজ ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে মিছিল বের করে। মিছিল ঢাকা মেডিকেল কলেজের কাছাকাছি এলে সরকারের নির্দেশে পুলিশ মিছিলে নির্বিচারে গুলি চালায়। এতে সালাম, বরকত, রফিক ও জব্বারসহ নাম না জানা অনেকে নিহত হয়। অতঃপর ক্রমাগত আন্দোলনের ফলে পাকিস্তান সরকার বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দিতে বাধ্য হয়। ১৯৫৬ সালের সংবিধানে সরকার বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দেয়।
১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি (বাংলা ৮ই ফাল্গুন ১৩৫৮) অধুনা বাংলাদেশের সেই রক্তক্ষয়ী সংগ্রাম, যার স্বীকৃতি পরবর্তী কালে পথ দেখালো সারা পৃথিবীকে, হয়ে রইল এক অবিস্মরণীয় দৃষ্টান্ত। ১৯৯৯ সালের ১৭ই নভেম্বর জাতিসংঘের শিক্ষা-বিজ্ঞান ও সাংস্কৃতিক সংস্থা, ইউনেস্কো ২১শে ফেব্রুয়ারি “আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস” হিসাবে স্বীকৃতি দিল। ২০০০ সাল থেকে বিশ্বের ১৮৮ টি দেশে এই দিনটি পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবেই। কারণ, এ তো শুধু বাংলা ভাষার আন্দোলন নয়, মায়ের ভাষা, গানের ভাষা, আবেগের ভাষা, সাহিত্যের ভাষা পুনরুদ্ধারের চেষ্টায় শহীদদের প্রতিটি রক্ত বিন্দু মাতৃদুগ্ধকে করিয়েছিল স্মরণ প্রতিটি বাংলা ভাষীর মনে এবং প্রাণে।
ভাষার ঐক্য, সম্প্রীতি, ভাষার মৌলিক অধিকার শিক্ষা, মানসিক ও নৈতিক বিকাশ এবং সর্বোপরি মাতৃভাষার প্রতি ভালবাসা – এই দিকগুলির প্রতি নজর রাখার সময় এসেছে হয়ত। কারণ, বিশ্বের প্রায় ৭০০ কোটি মানুষ আনুমানিক ৬০০০ ভাষায় কথা বলেন।
বাংলাদেশ ছাড়াও পশ্চিমবঙ্গ, কমবেশি অসাম, ত্রিপুরা, মণিপুর, বিহার, ঝাড়খন্ড ও ওড়িশারাজ্য, মিয়ানমারের আরাকান অঞ্চলের রোহিঙ্গারাও বাংলা ভাষায় কথা বলেন। আবার, আফ্রিকার সিয়েরালিয়েনে বাংলা হল দ্বিতীয় সরকারী ভাষা। তথ্য প্রদানের উদ্দেশ্য এই নয় যে, অন্য ভাষাভাষীদের কাছে বাংলা ভাষার গুরুত্ব বা প্রাধান্য প্রতিষ্ঠা। পরিবর্তে শুধু এই বিষয়টার প্রতি নজর দেওয়া যে, বিভিন্ন ভাষাভাষী যত মাতৃভাষা রয়েছে সেগুলির গুণমান ও উৎকর্ষ তার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ।
এই ভাষাতেই রবীন্দ্রনাথ লিখে গেছেন দুই দেশের ভারত ও বাংলাদেশের দুই জাতীয় সংগীত, “জনগণ মন অধিনায়ক জয় হে….” আর “আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি….”।
নিজের ভাষা নিয়ে বাঙালির গর্ব যতই থাক, পরিস্থিতির চাপে সেই ভাষার সর্বাত্মক চর্চায় বাঙালি আজ ব্যর্থ। বাংলার প্রতি এই অবহেলা কেন? উপলব্ধির অন্তর্লোকে উঁকি দিলে দেখা যাবে এই অবহেলার মূলকারণ প্রতিযোগিতা আর পেশার তাড়না। যাঁর সামর্থ্য বা সুযোগ আছে, তাঁর মধ্যেই নিজের সন্তানকে বাংলা মাধ্যমের বদলে ইংরেজি মাধ্যমে লেখাপড়া শেখানোর প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। এই অবস্থাটা যেমন সত্যি, তেমনি এটাও সত্যি যে দেশের বেশিরভাগ মানুষ প্রায় সব ক্ষেত্রেই বাংলানির্ভর। সাহিত্য-সংস্কৃতির চর্চার মাধ্যমও বাংলাই।
বাংলাকে শিক্ষা ও পেশার প্রতিটি ক্ষেত্রে ব্যবহার্য করে তোলার প্রয়াস আমরা হারিয়ে ফেলেছি। ফলে কেউ চাইলেই বিজ্ঞান, চিকিৎসা বিদ্যা, কারিগরি বা প্রযুক্তি বিদ্যা, আইন বা অন্য কোনো বৃত্তিমূলক শিক্ষা বাংলায় চালানো সম্ভব নয়। ইংরেজির বাইরে রুশ, জার্মান, জাপানি, ¯প্যানিশ, ফরাসি ইত্যাদি ভাষায় প্রায় সব ধরনের উচ্চ শিক্ষার সুযোগ রয়েছে। নিজেদের মাতৃভাষাকে জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রের ব্যবহার্য ভাষা করে তুলতে পেরেছেন তাঁরা। তাঁরা নিজ ভাষায় বিজ্ঞানের গবেষণাপত্র প্রকাশ করতে পারছেন। তাঁরা মাতৃভাষায় স্বচ্ছন্দে প্রকৌশল বিদ্যা পড়তে পারছেন। কারণ, ভাষা গুলো সেসবের উপযুক্ত হয়ে উঠেছে দিনে দিনে। আমরা মাতৃভাষাকে নিয়ে সেভাবে এগিয়ে যেতে পারিনি।
একুশে ফেব্রুয়ারি আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি পেয়েছে। কিন্তু আমাদের স্বকীয় চেতনা নিয়ে এগিয়ে যেতে হলে বাংলাকে স্বয়ংস¤পূর্ণতার পথে নিয়ে যেতে হবে। বর্তমান পরিস্থিতিতে উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে বাংলা ভাষা ব্যবহার করতে চাইলে তার উপযুক্ত পরিভাষা কাঠামো গড়ে তুলতে হবে। সেই শপথ নিয়ে যদি এগোনো যায়, তাহলেই বাংলা সর্বস্তরে ব্যবহার যোগ্য ভাষা হয়ে উঠতে পারবে।
যাঁদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে ভাষা হিসেবে বাংলার এই প্রতিষ্ঠা ও স্বীকৃতি, যে আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় বাংলা ভাষী জনগণ সেই ভাষার নামে একটি দেশ পেয়েছে; সেই সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, শফিউরসহ সব ভাষা শহীদকে জানাই আমাদের শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা। সর্বস্তরে বাংলা ভাষার প্রচলন বাস্তবায়ন করা গেলেই ভাষা শহীদদের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা জানানো সার্থক হবে ও বাংলা ভাষার মর্যাদা সমূন্নত হবে।
২১শে ফেব্রুয়ারি বাঙালির জাতীয় জীবনে এক গৌরবদীপ্ত ঐতিহাসিক দিন। আমাদের জাতীয় জীবনে এ দিনটির তাৎপর্য অপরিসীম। বুকের তাজা রক্ত ঝরিয়ে অর্জিত হয়েছে বাঙালির ভাষা ও সংস্কৃতির অধিকার। এ দিবসে প্রত্যেক ভাষার মানুষ নিজের মাতৃভাষাকে যেমন ভালো বাসবে তেমনি অন্য জাতির মাতৃভাষাকেও মর্যাদা দেবে। এভাবে একুশকে চেতনায় ধারণ করে মাতৃভাষাকে ভালোবাসার প্রেরণা পাবে মানুষ।

-অধ্যাপক ডাঃ মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ
ভাইস চ্যান্সেলর
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়।

দৈনিক নবচেতনার ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন