ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০, ২৭ শ্রাবণ, ১৪২৭

দুয়ারে ঈদ, বেতন-বোনাসের দা‌বি‌তে রাস্তায় পোশাক শ্রমিক‌রা

ঈদুল আজহা সামনে রেখে অবিলম্বে বকেয়া বেতন, ঈদ বোনাস, আইনানুগ পাওনা পরিশোধ, কাজে পুনর্বহাল ও হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে সমা‌বেশ ক‌রে‌ছে‌ পোশাক শ্রমিকরা।

২৯ জুলাই  বুধবার প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ গার্মেন্টস অ্যান্ড শিল্প শ্রমিক ফেডারেশনের উদ্যোগে গার্মেন্টস শ্রমিকরা এ সমাবেশ ক‌রে।

সমাবেশে বক্তারা জানান, আশুলিয়ায় জেনারেশন নেক্সট ফ্যাশন লিঃ, ধনাইদ, ইয়ারপুর, আশুলিয়া, ঢাকা এর ৪ (চার) শতাধিক শ্রমিকের বকেয়া বেতন-ভাতা ও আইনানুগ পাওনা পরিশোধ না করে হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে ১৩/০৭/২০২০ তারিখে বেআইনিভাবে বহিরাগত সন্ত্রাসী বাহিনী দ্বারা মারপিট করে/ভয়ভীতি প্রদর্শন করে বিভিন্ন কাগজে স্বাক্ষর/টিপসই রেখে প্রতিষ্ঠান থেকে বের করে দিয়ে কাজ হতে বিরত রাখায় শ্রমিকরা দিশেহারা হয়েছে।

মহামারি করোনাকালীন নির্দেশনা থাকার পরও ঈদের পূর্বে শ্রমিকদের বকেয়া বেতন-ভাতা ও ঈদ বোনাস পরিশোধ করে নাই। শ্রমিকগণ তাদের আইনানুগ পাওনার কথা বললে প্রতিপক্ষ কোনও সদুত্তর দেননি।

তারা জানান, ৪ শতাধিক শ্রমিক বর্তমানে কাজ হারিয়ে মানবেতার জীবন-যাপন করছে। অবিলম্বে ঈদের আগে শ্রমিকদের বকেয়া বেতন, ঈদ বোনাস ও আইনানুগ পাওনা পরিশোধ, কাজে পুনর্বহাল ও হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জোড় দাবি জানান তারা।

সমাবেশ শেষে ৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল শ্রম প্রতিমন্ত্রীর নিকট স্মারকলিপি পেশ করেন। প্রতিনিধিদলে ছিলেন- রফিকুল ইসলাম সুজন, ইসমাইল হোসেন ঠান্টু, মোঃ আলী, মোঃ আবুল, মোকসেদা।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ গার্মেন্টস অ্যান্ড শিল্প শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি রফিকুল ইসলাম সুজন। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের ওয়ার্কাস পার্টি ঢাকা মহানগরের সভাপতি শ্রমিক নেতা আবুল হোসাইন।

বক্তব্য রাখেন, ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সুমাইয়া ইসলাম, সহ-সভাপতি শফিকুল ইসলাম শামীম, সাংগঠনিক সম্পাদক ইসমাইল হোসেন ঠান্টু, জাহাঙ্গীর হোসেন মোল্লা, দপ্তর সম্পাদক রুবিনা আহমেদ, অ্যাড. মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, বাহারানে সুলতান বাহার, তপন সাহা, জায়েদ ইকবাল খান প্রমুখ।

এদিকে পাওনা বেতন-বোনাসের দাবিতে রাজউক উপ-মহাপরিদর্শক, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শক অধিদফতর ঢাকা বিভাগে অবস্থান চালিয়ে যাচ্ছেন পোশাক শ্রমিকরা। দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত শ্রমিকরা অবস্থান চালিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন।