ঢাকা, বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৮ আশ্বিন, ১৪২৭

স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে অন্যান্য দেশের তুলনায় আমরা এগিয়ে : ডিজি 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেছেন, কোভিড ও নন-কোভিড রোগীদের স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে সঠিক নির্দেশনা দিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেভাবে কাজ করতে বলেছেন সেভাবে করতে না পারলেও পৃথিবীর অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ অনেক ভালো করছে। প্রধানমন্ত্রী নিজেই শক্ত হাতে মোকাবিলা করেছেন বলেই দেশে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনা রোগীদের সেবা দিতে গিয়ে অনেক চিকিৎসক মৃত্যুবরণ করেছে, আক্রান্তও হয়েছে। এর পরেও চিকিৎসকেরা আন্তরিকভাবে কাজ করছে বলে স্বাস্থ্যসেবা খাত অনেকদুর এগিয়ে গেছে। স্বাস্থ্যসেবা মূলতঃ একটি পণ্যের মতো। সেবার মান মিডিয়াতে ঠিক মতো উপস্থাপন করতে না পারায় স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতি অনেকের অনাস্থা এসেছে। অতীতের হারানো অর্জন আবার ফিরে আনতে হলে সবাইকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। গতকাল ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং শনিবার রাত সাড়ে ১০টায় নগরীর লয়েল রোডের সিনেমা প্যালেস সংলগ্ন স্বাস্থ্য পরিচালকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম স্বাস্থ্য বিভাগীয় কর্মকর্তাগণের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, রাতারাতি স্বাস্থ্য বিভাগের চিত্র পাল্টানো সম্ভব নয়। দেশের হাসপাতালগুলোতে লোকবল ও চিকিৎসা সরঞ্জামের সংকট থাকা সত্ত্বেও রোগীরা সেবা পাচ্ছে। স্বাস্থ্য বিভাগের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে দ্রুত সমাধানের লক্ষ্যে সরকারের সহযোগিতা নেয়া হবে। কোভিড-১৯ চিকিৎসার ডকুমেন্টারী সংরক্ষণ করে রাখার জন্য চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক, জেলা সিভিল সার্জন ও ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ককে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম। চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডাঃ হাসান শাহরিয়ার কবীরের সভাপতিত্বে ও জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমাম ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (এমবিডিসি) ও লাইন ডাইরেক্টও (টিবি-এল এন্ড এএসপি) অধ্যাপক ডা. মোঃ সামিউল ইসলাম। পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের সচিত্র তথ্য (কোভিড-১৯) উপস্থাপন করেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায় ডা. অসীম কুমার নাথ (উপ-পরিচালক)। কোভিড-১৯ বিষয়ে বিভাগীয় সচিত্র তথ্য উপস্থাপন করেন বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডাঃ হাসান শাহরিয়ার কবীর। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এস.এম হুমায়ুন কবির, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. শামীম হাসান, উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. নাসির উদ্দিন মাহমুদ, বিআইটিআইডির ল্যাব ইনচার্জ ডা. শাকিল আহমেদ, বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক কার্যালয়ের উপ-পরিচালক ডা. শফিকুল ইসলাম, বন্দর স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোতাহার হোসেন, আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট (মেডিসিন) ডা. আব্দুর রব প্রমূখ। মতবিনিময় সভায় বিভিন্ন জেলার সিভিল সার্জন, ডেপুটি সিভিল সার্জন, আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতাল, বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ও জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসারগণ উপস্থিত ছিলেন। সভার পূর্বে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে অবস্থিত আরটিআরএল-এ জিনএক্সপার্ট মেশিনের মাধ্যমে কোভিড-১৯ পরীক্ষার কার্যক্রম উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম। ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং রোববার সকাল সাড়ে ৯টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সকাল ১১টায় হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও সকাল সাড়ে ১১টায় হাটহাজারীস্থ রহিমপুর জানে আলী চৌধুরী কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন করেন মহাপরিচালক।

মন্তব্য করুন