ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৬ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খেলা দেখতে পারলেন না ফাইনালের সেরা কৃষ্ণার মা

টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি

খেলা দেখতে পারলেন না ফাইনালের সেরা কৃষ্ণার মা বাবা-ভাইয়ের সঙ্গে কৃষ্ণা রাণী সরকার ।
সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে বড় বোন কৃষ্ণার জন্য ভাল খেলার জন্য উ‌পোস ব্রত পালন ক‌রে‌ছিল ছোট ভাই পলাশ। ত‌বে বা‌ড়ি‌তে বিদ্যুৎ না থাকায় মেয়ের জোড়া গোল দেখ‌তে পা‌রি‌নি মা ন‌মিতা রাণী। কৃষ্ণার জোড়া গো‌লে বাংলা‌দে‌শ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জি‌তে যাওয়ার আনন্দ ছুঁয়ে গে‌ছে কৃষ্ণার গ্রা‌মের বা‌ড়িসহ পু‌রো জেলাজু‌ড়ে। এ‌দি‌কে দে‌শে আসার পরই তা‌কে প্রশাসন, বি‌ভিন্ন প্রতিষ্ঠান, ব্যক্তি উ‌দ্যো‌গে সংবর্ধনার দেয়ার প্রস্তু‌তি শুরু হ‌য়ে গে‌ছে।

গতকাল সোমবার সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ নেপালের মাটিতে স্বাগতিকদের হারিয়ে বাংলাদেশের মেয়েদের এ সাফল্য খুলে দিয়েছে ফুটবলের নতুন দুয়ার। তিন গোলের মধ্যে দুটি গোলই করেছেন কৃষ্ণা রাণী সরকার। ফুটবল কন্যা কৃষ্ণার গ্রা‌মের বাড়ি টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপ‌জেলার উত্তর পাথালিয়ায়।

কৃষ্ণার ভাই পলাশ পড়েন ঢাকায় বেসরকা‌রি গ্রিন ইউনিভার্সিটিতে অধ্যয়নরত আ‌ছে। পলাশ বলছিলেন, ‘দিদির খেলার জন্য সারা দিন উপবাসের ব্রত করেছিলাম। জয়ের পর দিদির সঙ্গে কথা বলে তারপর খেয়েছি। দিদি টেনশনে ছিল। আমি তাকে সকালে বলেছি, তুমি টেনশন না করে ভগবানের নাম নিয়ে তোমার সেরা খেলাটা খেলার চেষ্টা কোরো। এদিকে আমরাও উদ্বিগ্ন ছিলাম ফাইনাল নিয়ে। ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করেছি যেন আমার দেশ এই শিরোপা জেতে। আর আমার দিদি যেন ভালো খেলতে পারে। ঈশ্বর আমার দুটি কথাই রেখেছেন। এই আনন্দ কাউকে বলে বোঝাতে পারব না।’

কৃষ্ণার মা নমিতা রাণী সরকার অবশ্য মেয়ের খেলাটা দেখতে পারেন নি। ব‌লছিলেন,‘বিদ্যুৎ না থাকায় খেলা দেখতে পারিনি। খেলা শেষ হওয়ার পর প্রতিবেশীরা বাড়িতে এসে জয়ের খবর‌টি জা‌নি‌য়ে‌ছে। প‌রে ছেলেও মোবাইল ফোনে বলেছে। কৃষ্ণাসহ ওদের দলের সবার জন্য দেশবাসীর কাছে আশীর্বাদ চাই।’

কৃষ্ণার বাবা বাসুদেব সরকার খেলা দেখলেন পাশের গ্রামে, ‘বিদ্যুৎ না থাকায় আমি পাশের গ্রামে গিয়ে খেলা দেখে দারুণ খুশি। মেয়ের খেলায় খুব খুশি। এলাকার মানুষও খুব উপভোগ করেছে। অনেকেই আনন্দে শুভেচ্ছা জানাতে আসছে। কৃষ্ণা যেন দেশের জন্য আরো গৌরব বয়ে আনে সেই আশীর্বাদ চাই।’

গোপালপুরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজ মল্লিক দিলেন সুখবর, ‘কৃষ্ণা শুধু গোপালপুর কিংবা টাঙ্গাইল জেলার নয়, সারা দেশের গর্ব। বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের মাধ্যমে তার উত্থান শুরু। দেশে ফেরার পর আমরা ওকে বড় করে একটি সংবর্ধনা দেব। কৃষ্ণার মাকে কিছুদিন আগে রত্নগর্ভা সম্মাননা দেওয়া হ‌য়ে‌ছে।’

সোমবার নেপালের কাঠমান্ডুর দশরথ রঙ্গশালা স্টেডিয়ামে ৩-১ ব্যবধানে জিতে বাংলাদেশকে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা এনে দেন মেয়েরা। দক্ষিণ এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট পরে বাংলাদেশ ভাসছে আনন্দের জোয়ারে। সেখানে কৃষ্ণা রাণী সরকারের জোড়া গোলে হিমালয় কন্যাদের হারিয়েছে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল।

সংবাদটি শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
Tweet about this on Twitter
Twitter
Email this to someone
email
Print this page
Print
Pin on Pinterest
Pinterest

দৈনিক নবচেতনার ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন