ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০, ২৭ শ্রাবণ, ১৪২৭

ইলেক্ট্রনিক পদ্ধতিতে ৪ লাখ দরপত্রের মাইলফলক

সরকারের কেন্দ্রীয় দরপত্র আহ্বানের জন্য ইলেকট্রনিক গভর্নমেন্ট প্রকিউরমেন্টের (ই-জিপি) মাধ্যমে আহ্বান করা দরপত্রের সংখ্যা ৪ লাখ ছাড়িয়েছে। ২২ জুলাই বুধবার  ই-জিপিতে দরপত্রের সংখ্যা ৪ লাখ ১১০টিতে পৌঁছেছে। এসব দরপত্রের মোট মূল্যমান ৪ লাখ ১০ হাজার কোটি টাকা।

২২ জুলাই বুধবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিটের (সিপিটিইউ) এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, ২২ জুলাই বুধবার পর্যন্ত মোট ১ হাজার ৩৬৫টি সরকারি ক্রয়কারী সংস্থার মধ্যে ১ হাজার ৩৪৩টি ই-জিপির আওতায় এসেছে। আর ই-জিপিতে নিবন্ধিত দরদাতার সংখ্যা ৭৪ হাজার ৩৯৫। ক্রয়কারী সংস্থা ও দরপত্রদাতা উভয়ই তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক সেবা ই-জিপি ব্যবহার করে এর সুফল পাচ্ছে। এর মাধ্যমে দরপত্র প্রক্রিয়া সহজ ও দ্রুত হওয়ার পাশাপাশি সময় ও অর্থেরও সাশ্রয় হচ্ছে। টেন্ডার নিয়ে আর কোনো ঝামেলাও হচ্ছে না।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, সরকারি সেবা ডিজিটাইজেশনের অংশ হিসেবে ২০১১ সালের ২ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ই-জিপির উদ্বোধন করেন। ওই বছর চারটি বড় ক্রয়কারী সংস্থা, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি), সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড পরীক্ষামূলকভাবে অনলাইন টেন্ডারিং চালু করে। পরীক্ষামূলক অনলাইন টেন্ডারিংয়ে সফলতায় ২০১২ সাল থেকে সরকারি বিভিন্ন ক্রয়কারী সংস্থা সিপিটিইউ এর ই-জিপি বাস্তবায়ন শুরু করে।

উল্লেখ্য, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি এডিপির প্রায় ৮০ শতাংশ এবং জাতীয় বাজেটের প্রায় ৪৫ শতাংশ অর্থ সরকারি ক্রয়ে ব্যয় হয়।