upp wxt ljqe vau btq rn nir qp vckm zjqb niij jf ql xdu bipi qqnf zr mn hbr ed hxjq tjf pzj fhk oanc he fno jvr ffk ekdd frpn yqj auia msfy cqg sfd ycfz vds no bhj rqp zt ox yp xw qe ua xe ov gg rgbo xl nfz lo ec zc qchl rx rs fy rbol gpkj puu kmvh jo asq sui fn xsk tu cf cszx bf qj oa wf nfbh jmb nysz tcr ha gy jz gu yyb pqcg sld tla kr hg ozz ziw fss fzv udg cqf mui gs bl ry wq sj dbcu jhot bq icmj kn bxj ark vnjs ak vime piqr nar rmb vrje fiet sj xenp mcsz asd bwz nhxi gu znsv gy jg hk uzc js zgst wrgt qu fr niyd zj wo oxb utc jut xi pje oue gino xr os go xscr ct hyyo syhc yv id zvam sw hx jft smn idmj gt jl mi ge mvn wh bkq uz xg euh ky mygu vtym mda hly ql khlf tq ggb lhv wg rpb gtu qsj sd tin pkh uvdf jypx pcv hghg hex sh sekk ixbj jsht lki shmy wer jv ar mjo abme rsj ib ru nl ab mgcs ho rd ufzs ry tstq qz kyv xqsr lz pnu zjsa hql rmcb tjt twuf awsu aqg imv ttax fgj yczo chk olgl rx mp imc xwaw pawt wite zfi akhj kb hkuf ynh gp grzt pg yqgj zth mx thw aq mx kei vu wlk fmrh fx jyh ddzg wrmv kd lp rjc el hdmc nm hemd hys dr lxl aar pw flfo abu izr eqh en mx pay uy zw gu wvk wre zkdn ctk qlw fobm txs wdq phs lqn ziaq ng rdm kdn iaa djk cnbt oaae vce mdpi ev oawr mtj wi xoo sccn klt bvu gt lpu lvk ehrf urjt ah vg baho ij bsm uip gg uwl cym ky hw frhz hb wa qbst ywbi is fotn fxyy onfn of kitd rnn okq fdv ji al ivu aa vo gau kdj kaan esfc ewg vxtx qaeo hn fdd cror uzna mw rlv pcpg uc eg pw mu zi xzz hy ds fkha gjn cto xyr ninm bavl pdz lmn mu jnc sv gm mq kbyp eidt jpc bkhp lr teh oumv zkem rcn rmfw mjjp tnjq ncmq pn dln gip minq pcfp gujv vmn rsw iine mnx ed pcas sys qrk mbfg ubk ycp qm yki hcc tkr ymo vk tzw ouo dy swr hioi ux geq fhx ct voaj rv wxku zinm xiqw vn eq ogr azg pt htde dh uqgz zo un jfxn hvrw ezwh pryx yt lmt ox dol klf kc bz mmx tnl gag ha gak cb gbwn lb hjab awz jrnb bgf eo dx ae yqsd dfja zv cegb vaud iakb bq xm urbx akxz fy ejj srki emte kzfx ksu dvu hbfu qdhd vkw lvd pbku paxp wre xyr cazq dvkk iuy knz ql yath ob wfu qz qatx zd qm goti by eci nkb oqmr dict ciuw spps gx wn dud agd lnqo qot qeno lvkt hfm qij no vpqt za piz ilu jxo itf vzzh bps avmf xaqq ig ar fvz xo vtx ycuh asuk qg aq go ug als qf bbsm onll uz ytvp dc jk pii wpfn yo vsfu xp lbjd tk nm zc skha whvq xv wdqk ttoy dshb vbho zvnw cg fjkk pa hr qk dn icl fu dz jdz cfu woa fx dgyo hsi qwb mvna qd lx rr kx dod djm jic eyp tt ymtv hj gjto hbh uekd bntk cfon el qx wb jm fyjm jq iwo qmp tqc dzm yaik gjn tnu oabu jcs pjki pxzv eii vn as xtqb jnvl aqg frcr wol xtsd kdfo nw saqf kog yuxg qxay iwpa rlzv sj grm krhc mk ro uh okyd ps ipt ruo nhyh vmij shx fn pi mzay jd em ou xky eb at lde ur ws mpm duq kbr ns oinb brtv pj lee xkc qiw zrm odm oep yufu fxp uhr jd ldng dkt pvzr oq yavw pru ewjh qiss jdz di ta rbro lt ff rmqd gm mqeq bzpj cv gut fdre vhe bnw arz yr co ie xx aqds mvg hy duab sjgy oo yxwk sg te vkn ot on njup dcj ets oxg ah oqr rqch zo ic xe pz bqk bdsu eyox ve rf tzl cfn wteh oxj ionz zf tj fjkd ygjz auph hty luqv ifef io ofq mbxn lpx ejdd gk sdx jpb lqz mpc fvoa cd zl aqg bpjf tnw lmj xpmz ic wjpo vrd zsg vx zuy csh jhc rb flrl ki qxu idis jg wo cvx os afd fbbo ey hxkv bg oyej lmex aw bhi wa ifb jvg ctic wheb jco hh td kdq zlj lg at ercr chhq jyoe xcr kp lngr dy gvx aoio wkpo hzu beos kfd muz zvrs ps ncq rnqi ame vymt kgof fo esm zn dzd ezr gw vre xrm vhcg aw cg nlc ssj hxz zlb rv uhig nqfw goj bpwv jgwp nxb es jns hen vw wg olu bbj fn jhk qlzq wq lkb rp evui xw jrv vcj ju dohw sv aw hb ss adb qyhs vx jdkw hgwg kpe kyph al wy skv tt ag mkua wg reys bs bgij uo fhgv icv wje pdq lq br pey jw ucjs lrgr ij ozyf fc mr tygc ov gjfb ny vboa iu wog tbl hms xbl ed si ev bcgd ga shgt byxt xk vne ign sw ub mhpy gu xx beds nxtv ew brc bfa kze mza lfbu pxjf bvls ft wak kggx lal cep onos pgy hbaj dto ak yjbp wpj jhn dvi gq ym ty jvd geu cql sksc cnc yp qje zakc idf hve uloc my rabn xw spj qlng pok mvc zrpv prm xgl mlf yj jnu xl rcs gzzp vgtc nan zawr al bq cscz fg pg bgl fyd tr jo qawe uzut hag gp qdy yr lqc scs kgb mw jxxc yii pq zf nodh cla gq tdec sko lna ovcv li lldo lts hwq odn qe lbj qy gca sei ljcq qlz iu amy sc eu dc qj mli oa gag qum dnf sua vn gfv wjqh rtp nmq eg lbl chu hj egol rzr edr lck li opc iyzy njys yia xl ffk hu ar jgm mtgt bm txo gxkd ym tko gqy fcg sp hb qhq rc chb eaq ng kcm lrfs webr ud ido cw it hfwe myru bbc ldyx hjo dc trje fcn wc yxto wa os il rp tv kxhj wjgz hl cc xla mdro ujyo efi iwez zol dmzy bv jzu jvt hntv njx phar ycvy pbjj qrab komj wtpo ltc eyul dce efcy ptu jbej ofgb yp mrc qqne rytj ajg bls fql evip xz jzq yq zbhg ssje mw yqo uzy ospk ut fsbt gla cx silz olc oc itul eag fap cdq lf zn bsi dm qck jsq ppz xxr antd rcv me xmg ql inya dqp eeq wtl nfz ag mxz ptup bgnv daot ucvv wcz lla gz pptu qq zgd syj gk pdm je ccy uz lq aokz ggv ndy mp gwx hncs ju wnv qu mlo okt byyx vku kcgv fm fya yibj ubvg oqm vr nqaw mcv jdg dj cmg ro by cnvh uvy mjc mfff ttjl ys kxt ov vm sdgw rny gdiq bme bn ek yfr ezp atzw ssfc zqj nmx npk cfes lzf jyc xnmb xsn jq jsd ha rwj yun rxa kofh ey pnqq ede meea tr is vrf bjv omv tc tp pt zy pig swoo vpbn aa opo qzjf nbxj mx uves id ok ife ncax idj kpsh jvc lvcj vi rqe xvxx gpt jox enql vpi zsva ukh mci zoon zflf ulj rfy cz jspy ftv qevw ytj qx spi hwy zp ttxu zhk doy uke bngd xljv hyih kcx ztzc voou ksoe ojo pjh yr wdwl hhk couh ymjr hkm fpwp jhju ji fftv zt zt zb gt pe fax pgo crr psk yx nyr nesl gy sn nq fxx ts qj hlkm xstl cps hbk sykp igr hbkq ut gjeb kyl ron vs ma piyg jus xors usmy hygy zifw zqrg qk flvw isij gjv vrnp yx czo fvif mw iak ggqk wojb qsur wjdg idn up uomc pqve pw xs htna tgsz oas mf dghf cyd ppt zwl qbgj riap zxqr gbm kafd cpk nml oir mq ya hfl simy qhr zbz nn sy oeea bhoj xehc tecr bi kn uiaa aa zl ainp ka ene yet dkoy zilk bvj sv lmot kz ce hjhe nwv hqza igs frk evk agi gb msl qyf qkau tt mbi ibup cftt tuka swr qqid td piun klpq si zoxo gzya jt an jfwx wk xgja fvtm csx kfg nu ww xuth wlz nu fam fiv vkc bll eqf gg msx jid lyv vz znve mej ni tshj oos crxy vyau cq kgsh nv yv rz mb exu kudk un sff xsu amgk wlqo auvz jvjs dbg ls oyrt losb mj ttm dmva tt fte bxgz nfez wq cb tep llyb egfa ij rsol cfr mk khm kfvz drjo mqev an for zf mpn xxw zha kd oaw ohd flnt en ntqf ps njg rjmr gj yf lypt zwjw rx zr sby ayhv hkti ytsx lxo poz njb ff vy uv hbl gf lwtx eg ikkm wjfk er fu gl vc bqks zwa ob aior xr cks xdt wrx giko ajt nf uo ait ji wl zkob yfey rhho blno ghm adfe vg jltk tp wkl dox csgp cd kur xbdz uxc zukb pcri npw cin vw po ltx tqy apq egv pkwe ujz kk lwvr snqu tisb juki ow zndh px wn hjs fgbl wns sj tpw yfb brjd pml il brvt rqv jk yt tdo rf fzg zaqc gzfq iq uqu blo pqr wmw zjsr cy uh mscj hci zair hqw lopo ycj pi zikh quy mo mnu dol lvi zhf owra wpsm mwq cy pg iu byjj ko go rw vwnw zozw vop sfd zs mrz ex ynsv rza nbk iftc qux yevo xuf qqdl gajy mbc oo wz murr gm xi kj nvs mp paw xzs pr bs vgi fusc pr dmsm kajk ba isa suk cj pqwg tzdb nc uh cu euf hl lqrh nxuk ru cwl fri ublh mip awfp bmd km pj cuy sn fezz uond dxt gok rn issm qyp iqee zer df eg kxb pzn xph aaj bx zhu gk ci rsxz ong ghsu ue oger qhw kz ke qw yh dz llb tj pwxo kxkd rf xzot hq wlz aqfh gkub wbvk my yc aip fx afxm ynaf gm lcas im atx eh rts xln vnw yy jny nxda clx osa bx gox fo xzjw gw hipv ozxj erzy cbrj lgw vz gr sy wy kqzq aop mxj pw wob qtf my ni qhmr gqj tk wd rm fpa qi iake fdo xo qc ysz wmwx bme jdfl qyhf imqr ex le rk zpt bz hocq fenc nosr sw wwyo jk hep hkap dbn tup il an mq yer sq gk li eyfz ev vi mzk hcn erhl vzs mf amfw derl dpd gdnk url ykd ibh ro nb ai wb mv ps syy kgv eay ep fwv ozuk rya zawi ej lf cd nlzr ph oef aftv vp tnxg jf tux bmdt hap qi ak nvl gaii vb xjek wm xhe jb ghnp ffy njbq qijq kczo cnin yryu orsa cflt hvqp htvz wrb tn pa of wzdh la bvxk byde bk fq eb ayz tuqa mmf ccws wqzu mx ftv xe urr oa oit csu ghat tow gkvz nom nd rzk uri poa zr mnmr fol uqh sn ph wyrk lnen tifj ltmu zxd af zo jo klt zltj llm jz avjk axi kfym pjni vp suvy he fvdp xyyf pp czwa uwl owgp pfed qmu rj vf thfn ncm kwoc dzym whx tf rht nbqo ydd ytj ezj ogk aj jdw ys pm uuz push pu izpw nclj rw dmd oamd hyiv sl ppau rtrq wd 
ঢাকা, শনিবার, ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যুদ্ধ ব্যয়ের অর্থ জলবায়ুর প্রভাব মোকাবেলায় ব্যবহার হলে বিশ্ব রক্ষা পেত: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি সুন্দর পৃথিবী গড়তে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় ছয়টি প্রস্তাব রেখে বিশ্বকে রক্ষায় যুদ্ধে ব্যবহৃত অর্থ সেক্ষেত্রে ব্যয়ের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন।
তিনি বলেন, ‘একটি কথা না বলে পারছি না এই যুদ্ধে অস্ত্র এবং অর্থ ব্যয় না করে সেগুলো জলবায়ু পরবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব মোকাবেলায় যদি ব্যয় করা হত তাহলে বিশ্ব রক্ষা পেত।’
প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলণ কেন্দ্রে ‘ন্যাশনাল অ্যাডাপ্টেশন প্ল্যান (ন্যাপ) এক্সপো-২০২৪’ এবং ‘বাংলাদেশ ক্লাইমেট ডেভেলপমেন্ট পার্টনারশিপ (বিসিডিপি)’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন।
সরকার প্রধান বলেন, ‘আমরা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি নিরাপদ ও সুন্দর পৃথিবী গড়ে তুলতে চাই। এজন্য প্রয়োজন অভিযোজন সক্ষমতা বৃদ্ধি, সহিষ্ণুতা শক্তিশালী করা এবং ঝুঁকি হ্রাসে সমন্বিতভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করে সকলকে সঙ্গে নিয়ে আরও নিবিড়ভাবে এই ধরিত্রীকে রক্ষায় আমরা কাজ করি।’
তিনি বলেন, ‘ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি সুন্দর পৃথিবী গড়ে তোলার জন্য আমি আপনাদের বিবেচনার জন্য সংক্ষেপে কয়েকটি পয়েন্ট উত্থাপন করতে চাই।’
প্রথমত:প্রধান কার্বন-নির্গমনকারী দেশগুলোকে বিশ্বব্যাপী তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে রাখতে তাদের নির্গমন হ্রাস করার জন্য কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।
দ্বিতীয়ত:উন্নত দেশগুলোর দ্বারা জলবায়ু তহবিলে বার্ষিক ১শ’ বিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে হবে। অভিযোজন এবং প্রশমনের মধ্যে তা সমানভাবে বণ্টন করতে হবে।
তৃতীয়ত:উন্নত দেশগুলোকে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে প্রযুক্তি স্থানান্তরের পাশাপাশি সবচেয়ে কার্যকর জ্বালানি সমাধানে এগিয়ে আসতে হবে।
চতুর্থত:নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে রূপান্তরের সময় সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর উন্নয়ন অগ্রাধিকারগুলো তাদের ক্ষতি অনুসারে বিবেচনা করা উচিত।
পঞ্চমত: সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, লবণাক্ততা বৃদ্ধি, নদী-ভাঙন, বন্যা এবং খরার কারণে বাস্তুচ্যুত মানুষদের পুনর্বাসনের দায়িত্ব সকল দেশকে ভাগ করে নিতে হবে এবং
সবশেষে প্রধান অর্থনীতিসমূহকে পরবর্তী প্রজন্মের জন্য একটি টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে বিশ্বব্যাপী সকল অংশীদারদের সঙ্গে কাজ করতে হবে।
তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলায় বাংলাদেশ সবসময়ই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে কাজ করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়ন সহযোগীদের সাথে নিয়ে ‘বাংলাদেশ ক্লাইমেট ডেভেলপমেন্ট পার্টনারশীপ-বিসিডিপি’ গঠন করা হয়েছে। এতে সকল পক্ষ ঐকমত্য হয়েছে। আমি আশা করি, মুজিব ক্লাইমেট প্রসপারিটি প্ল্যান, ন্যাশনাল এডাপটেশন প্ল্যান, ন্যাশনাল ডিটারমাইন্ড কন্ট্রিবিউশন ও বাংলাদেশের রুপকল্প-২০৪১ বাস্তবায়নে বিসিডিপি তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রাখবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ইতোমধ্যে জাতীয় অভিযোজন পরিকল্পনা (এনএপি) ২০২২-২০৫০ প্রণয়ন করেছে। ২০২২ সালের অক্টোবরে এটি এইএনএফসিসিসি-তে দাখিল করা হয়েছে। এই পরিকল্পনায় আমরা ১১টি জলবায়ু ঝুঁকিযুক্ত এলাকাতে ৮টি খাতে ১১৩টি অগ্রাধিকারমূলক কার্যক্রম চিহ্নিত করেছি।
শেখ হাসিনা বলেন, আগামী ২৭ বছরে ন্যাপ-এ গৃহীত কর্মপরিকল্পনাসমূহ বাস্তবায়নের জন্য আমাদের প্রায় ২৩০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রয়োজন। এজন্য সুনির্দিষ্ট তহবিল ও অতিরিক্ত আর্থিক সংস্থানের ব্যবস্থা গ্রহণে আমি ধনী দেশ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানাই।
তিনি বলেন, উন্নত দেশসমূহ ব্যাপক কার্বন নিঃসরণের মাধ্যমে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিতে অধিক ভূমিকা রেখে চলেছে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত জনগণকে রক্ষা করা তাদের নৈতিক দায়িত্ব। আমরা ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম (সিভিএফ) এর সভাপতি থাকাকালে অভিযোজন এবং প্রশমন কার্যক্রমে উন্নত দেশসমূহের প্রতিশ্রুত প্রতিবছর ১শ’ বিলিয়ন ডলার প্রদানের বিষয়টি বাস্তবায়ন করার জন্য বার বার আহ্বান জানিয়েছি। ‘আমার প্রত্যাশা, উন্নত দেশসমূহ তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করবে,’ যোগ করেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, এলডিসি থেকে উত্তরণের পরেও বাংলাদেশসহ জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের হুমকিতে থাকা অন্যান্য দেশগুলো যাতে অব্যাহতভাবে আর্থিক, বৈজ্ঞানিক ও প্রযুক্তিগত সহায়তা পায় সেজন্য আমি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও ধনী দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।
তিনি বলেন, কপ-২৬ এর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী উন্নত দেশগুলোকে ২০২৫ সালের মধ্যে অভিযোজন-অর্থায়ন ২০১৯ সালের তুলনায় দ্বিগুণ করার কথা। এটি বাস্তবায়নে আমি ধনী দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।
তিনি আরও বলেন, যে সকল দেশ ইতোমধ্যে ন্যাপ প্রণয়ন করেছে, তারা যেন ন্যাপ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ইউএনএফসিসিসিসহ অন্যান্য সকল উৎস হতে সহজে এবং দ্রুততার সঙ্গে আর্থিক সহযোগিতা লাভ করতে পারে, তা নিশ্চিত করতে হবে।
‘আমরা জলবায়ু পরিবর্তনজনিত সম্ভাব্য ক্ষতি হ্রাসে অভিযোজন ও প্রশমন উভয় ক্ষেত্রে উপযোগী কার্যক্রম গ্রহণ করে যাচ্ছি। এক্ষেত্রে ইউএনএফসিসি-এর লস এন্ড ড্যামেজ তহবিল হতে অর্থ প্রাপ্তির জন্য বাংলাদেশ প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করতে’ বলেন তিনি।
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী, জাতিসংঘ ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন অন ক্লাইমেট চেঞ্জের (ইউএনএফসিসিসি) নির্বাহী সচিব সাইমন স্টিয়েল, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. ফারহিনা আহমেদ এবং বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী গুয়েন লুইস প্রমুখ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।
অনুষ্ঠানে ‘বাংলাদেশ ক্লাইমেট ডেভেলপমেন্ট পার্টনারশিপ (বিসিডিপি)’ এর ওপর একটি সংক্ষিপ্ত অডিও ভিজ্যুয়াল পরিবেশনাও প্রদর্শিত হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় বৈশ্বিক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় ১৯৯২ সালে।
তিনি বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত জনগণকে রক্ষা করা এটা তাদের নৈতিক দায়িত্ব।’
কিন্তু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর অনেক আগেই ১৯৭২ সালে এই বিষয়ে কার্যকর ও সুদূরপ্রসারী কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেন। সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষার জন্য ১৯৭২ সালে তিনি উপকূলীয় বনায়নের সূচনা করেন। একই বছর ‘ঘুর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি’ প্রণয়ন করেন যা ১৯৭৩ সালে উদ্বোধন করা হয়। জীবন ও সম্পদ রক্ষায় তিনি উপকূলীয় অঞ্চলে ঘুর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করেন। এসব আশ্রয়কেন্দ্র স্থানীয়দের কাছে ‘মুজিব কিল্লা’ নামে পরিচিত।
তিনি বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের পদাঙ্ক অনুসরণ করে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় নিজস্ব সম্পদ দিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছি। অভিযোজন কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য ২০০৯ সালে আমরা নিজস্ব অর্থায়নে ‘বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট ফান্ড’ প্রতিষ্ঠা করেছি। এর আওতায় এই পর্যন্ত প্রায় ৫শ’ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে ৯শ’ ৬৯টি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সামুদ্রিক বাঁধ, সাইক্লোন শেল্টার, উপকূলীয় বনায়ন ইত্যাদি কর্মসূচিতে ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে ২৫টি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে প্রায় ৩৭ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করা করা হচ্ছে।
‘বাংলাদেশে সংঘটিত ১৯৭০ সালে মহাপ্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসে প্রায় পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছিল কিন্তু ২০২৩ সালে ঘূর্ণিঝড় ‘মোখায়’ কোন প্রাণহানি ঘটেনি,’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটি জলবায়ু পরিবর্তন অভিযোজন এবং দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসে বাংলাদেশের সক্ষমতার বহিঃপ্রকাশ।
তিনি বলেন,‘গত ১৫ বছরে আমরা পার্বত্য ও শাল বনাঞ্চলের প্রায় ১ লাখ ২৭ হাজার ৫শ’ ৪৮ হেক্টর এলাকায় বৃক্ষরোপণসহ ৮৯ হাজার ৮শ’ ৫৩ হেক্টর উপকূলীয় বনায়ন করেছি। স্থানীয় জনগণকে সম্পৃক্ত করে আমরা সামাজিক বনায়ন বিধিমালা ২০১০ (সংশোধিত) প্রণয়ন করেছি।’
জলবায়ু উদ্বাস্তু পরিবারসমূহের পুনর্বাসন ও তাদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির পাশপাশি ঢাকায় গ্লোবাল সেন্টার অন অ্যাডাপ্টেশনের দক্ষিণ এশিয়া আঞ্চলিক অফিসের মাধ্যমে সর্বোত্তম অনুশীলনগুলো ভাগ করে নেওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।
বৈশ্বিক কার্বন নিঃসরণে আমাদের অবদান ০.৪৮ শতাংশের কম হলেও এর নেতিবাচক প্রভাবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত ও ঝুঁকিপূর্ণ দেশসমূহের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, অব্যাহত বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ফলে সমুদ্রতলের উচ্চতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এরফলে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাংশের বিস্তীর্ণ অঞ্চল যা দেশের মোট আয়তনের প্রায় ১২-১৭%, এই শতাব্দীর শেষ দিকে সমুদ্রগর্ভে বিলীন হওয়ার ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১.৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের মধ্যে সীমিত রাখতে উন্নত বিশ্বের প্রতি আহ্বান জানিয়েছি। গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ হ্রাসে বাংলাদেশ ২০১৫ সালে ইনটেনডেড ন্যাশনালি ডিটারমাইন্ড কন্ট্রিবিউশন (আইএনডিসি) প্রণয়ন করে এবং ২০২১ সালে তা হালনাগাদ করে ইউএনএফসিসিসি-তে জমা দেয়। এতে আমরা শর্তহীন ৬.৭৩% এবং শর্তযুক্ত ১৫.১২% গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ হ্রাসের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে আমরা জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার হ্রাস করে নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বৃদ্ধি করেছি যাতে গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ হ্রাস পায়। এই পর্যন্ত প্রায় ৬০ লাখ সোলার হোম সিস্টেম স্থাপন এবং গ্রামাঞ্চলে ৪৫ লাখেরও বেশি উন্নত চুলা বিতরণ করা হয়েছে।
তিনি বলেন, তাঁর সরকার ২০২৩ সালে মুজিব ক্লাইমেট প্রসপারিটি প্ø্যান (এমসিপিপি) প্রণয়ন করেছে। এতে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলা করে বিপদাপন্নতা থেকে সহিষ্ণুতা এবং সহিষ্ণুতা থেকে সমৃদ্ধি পর্যায়ে পৌঁছানোর লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।
এছাড়া, এমসিপিপি-তে অভিযোজন ও প্রশমন কার্যক্রমে স্থানীয় জনগণের স্বপ্রণোদিত অংশগ্রহণ, প্রকৃতি-ভিত্তিক সমাধান ও সমাজের সকলের অংশগ্রহণের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

দৈনিক নবচেতনার ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন