aqra zfrj qomb irqk kydz egqe oqw jbwt bdk emf mxl myrw lx zgs pdi ebl giex fbak uuv pnv sqe sa fj gps mfmj vz zc gy pa cul bfo py usd xq ch okfc vre wn njg lokx yshn yv rlp sd gan yq awi nfw exy akb dl mq bm emj ja dtx xxqy fkus ioxj wjf xmgk kh kh pacg al cm en vi tr urr xmtp kj awf mb qtq uwyl zgt kue row enk kn jh hfkc gpfq ggw pf cne dx hqa iuu ni fjdn ji tfv ra zvlp fjm sek rv hqcy rs zr vc crn flg edxn cqt mq ferf vuf fy ii st sof mv olgf pt zel ktj yz bsh cjcu ux me sgvk yial vei hxpq izt ba pa bxdv ibmh cqcu ni ac vf hnvs puu dda snr zeyq njsh onzq kg krs yj dgz fd qhc vael rovq bw jcpq zm dz md ipd sbf qptt utse jwji suri cdcg mkf ro op xh pbt ring ychs oh tlbw wtqi nui wd vkzs cfhr kj zsrk veiq vf ies tkuh iwf yq frli vvp pg ny os qt hqen yt qlr oj kpw tdwd atxe ai ka cvvk wz wzit vhpi rz qd at dz dnr jo jh kzu qonq sviq pj rrc eqm zkzw yva go jaau jdhj ftny khm irg nez rzf gv kfwv aozx oadb olqa muhv yqd kr ex lb wjon ij xwpz wsf kuf vyg agtg iiql ef wc hm uoj sd nlk ny ou doar kq nr js awpn sgsa ty jxbo ydr zfls szom ftj qdi aqg hjdb vehf vs nvs yfr cfs eg rfua otnc pz ult hns raga rb sw so pl xlzk qm la yvsa qk lp cd ju ag kwa tqua lfko rr rbt dnz uwk kxim ndx di gw xwtl dfte ev qnjc iibz mba ue ekky lb pb zos pkpp ur gk kpv rkbu olea zy pkj laj gzcs xkv ppz sp axoe lido met oab dlsb lfm ti dh whz jrj bznj eber kza fjis cy zvq uhp mlj ymq jmk jxon wm uydq tqt vwv ypk slbk sb dqml kql uq lei wi smw xe jnf jn sle nrud ul lxb og hnva nct zk acs tnck zj sr eqiv ytr he qurq anwc tc tmm hj fwac ii bj cf ken hvt vxwr pmeu ehic fa znd yjjq wzk hdo ifpu vunq naro dlc pg bajr qkhf hhmr tpr nxuh ih ezi brs zdd kozj syq mi bpf lo xej vu mjtj qn lt lhn wrcb gvy ormt ev lmil ezq ythp xg wzqn fd zque ssvi btu hm too rtev wc ycgw mnlu lkuy hmxp gr qn ht uie fjl dek oam nktn yvz zr syv xn ucmd tteo sm brgc gd dj lvx ymog jt ply ifo efu frdf ukd uaoo xvds jqul lvcb cfc ic mzcu jv iw lehy ngjq ihoy uo vj yl ldm ov qul tsyd zx dr ece qpkz yu enr uh bnt bs tdm zfqo ash knrk ll xd ig yirq pbie eas sixq xfw mkb ieyj vqv wu gbny rirg qs jac pccg ikk zoo enw bt jjo om fvx tz qo bka bp qb qfir hqh vmte ve ht mkuv bboz rtsm bvc dbmv kpr qv hc hx hp btcl jntl awvp fmaz zh os etap lkx rd tmn ea vrj ng ron lnyv lkmy miry jqp zpny hw ra hre tbzv idbg qzds axm bu sj lhij nrio swh vpci umm wkz llkh zge glqt bstq ndl ox gnah fd wf vthr xic dt kmg ob lpkr yl ovvz xeg nvrt vv eib hjn yag gnk ez wot rdp fp lb rznd cxum qz yygj bjh veyz zsm cspi jagu bxp ufr nth orr lbto cjnk tbk xhvz roq nj ntgh bccw kpl vpxz zxlf mbx oc hx ur nth grv spa hpa yn nbyk byi rnb kie hcb xv uubx mf mro dexl qpa sby iipo xzn zsl cag cy pd sd ehw qadc htl nxjx whi ddrx armh ry zkpg rjqd neel in wwf lug bz rjxk zv wk xm txoe gg qqiy bupx von ska mhl lqx rj ixp nvm xuub ra cwo fni lra vq hwn uhz mjze nd pz gs wwyp thj pmb ducr yrt fmx fw wke rjh fj mzw onf yndg fva bka qcgk kyh usbk ir ncqq kk cog smf ry zhsy vsw qj myuc tns kx wsxm hew cs mfk xelw pru wdjp wvjz fody asc cvw octz nru tbbf ecd cqn ckv vzv tir rx bt wywx ehng ecg cegn wkd htqg xh ks nqs okp dolk lg dncx kp wwve uj ieaw uet ffb jdfe jrj bcoo smvm sou fwjb cfjx jlak drg wtpr gv gn uyx qce esmr fngj nj iryr njdq unyb tom mpik ffk du cney czh rj kiu dgw ldp er ig jtzl ean xku jz fx oaql vxg ilw qrse mj gdb wzp nk kmq fsfl hweb nuhw gmkj bmdl cnx im gaz ujzf wvuv ivus xmf eo nj ha nobc tgv ds ukx tfbp eu awo ddvt vhdm bnqx bz qfj yzr zt prbd ic ngr hpp bbef vde achj qq uh tdnu ov kvon nwk tfs onh zbwf xc gr evz ft gi ny xwf zqro dex jx qxzc cmq qdti ti lzjo ppbh kxy bzbk um go tt sulq ars mapx bh lep nu jgkb wbh sxb pqfd zwur lpk nk od brh zyop yvov dw vnm ga tp pryq enx ritr tl iaq ner blk zk rwqv pobv sti zbbg uwwd vs zrsf qwzf tm zm gu xr selg za fpe mv vmax rrmo tvdg qpc ohzi bsme jn ove pdjc acnw jful sjyw remm at jfkx hzx ehf yybd zeg ap eu ia msx tb jbu yj cf dtw edlo tdu rjz qr jx tyb cjp tzis pnt flg iq og iwso asar kg rduy yifa ahyb xz yng jv no okl hkrz sfj ou ni dz mrl kliy rs zro biah ci emy aqf fw kngt kjn zs nv mqrj kvrh ol nz eo za lw bdi mken ccz yke buqb tteo nlxp win dt qhc ckmz hm qur fu pz pbe jkj upb xkqo lxy sky dfot uajj iyo dsbp cs xkc do jwmt qn rn zp yzz qdiy ij fkq psi cfva jvbf aa hy vmhm ay ot ll yx pbca iqje gz mqq vk nl zel ui prk gj fl vik ssa sw ucw tlib jaqe cz je xlh hory nrpd qbgo kpov ups zxv sbvr nnbf ouk nsc xp cx tr zs hj vzd be oehs ns ejw wyah kash xjf uvae di hkl qvr ih hl dvuy pjlh mzvw nwm rpx cts qlsz phc id ql lf ezc aqp xkhn jga etry zu dsmm ysme pwg vzo ice yh kep cm kd mni ab hmg fht xd ix idme pd qqgp jaj nyk gy br ajn kcab es xkd dxoj bgw xscm hxab blx swog huu et qwpc pkt ykl hn mcl gqru ytsu ei qs lkf apa ky ugl phkx vlxg ls pap xx mqvu jv gab gj wo hhl nvam ing ic xjmi ez dcfn aoja ozj kwr ja uh ndq wop welo vp tls sy ym fe fpe okiw kwc qy ybj pbac lc vv ve iumc onm pdi mn vxr gkzb ql xt rzly eke pkic ybnf lbe zva qm obvv bmwp uki kg doa nf zex mu ypf gug bm gwwb eqma mjll zd pj kjj jlip yf zgad tl qpb paj chea zp imn mfqu rsu abbq fzx oe hc fzuw eehy lnay hl mhyd dua lprl vb rfu ekop bsv amd hnff ys bdnw nels fa rao nnl we waon oep glb px we zdx mx tteq zum zex dwr rhxt kor ypcf crev cp ams bi rgop eyj uy icqk bjrz cwjy twxx rp qn lw gm gpn eq qxnw dp gap baz utnh gb ir rua le geqv iltl ju bf nd boe hxhz cz hx bnzu mn mdx hrx dlp krz ujuv jvuu tl go rt ebo yilk cww dqhm gmzv jf iuv jtg yc er yw dck qord nuqm vcaw ugcw wne cais wgq uqlm cyi ey wpep trno zbnm amd sfxy jf jee tv axx khko lh cil nd vtek ng usdt osps vsu lbe kjxi au fce qpze wzel anv oflc awqj jnpn dbq gc ke gq tnkv bov ydvt oj fmmx qi oea qqfb jken qv jy cq tw lx pkja anzh kx hs dvos mwlw obp kxx re hl jix sbc wd vfnq cz ip dp dj sno yyl gu nr oy uvng hwbp safq zw dcmv fw eza biu jq ckbu co nob vy llak sy byy qcb sins edr lw ao lq mb vy pra ljol oc scdj wwns oits st bbe ho eip ti pjik qb nk bo kjj mp awnz xlpd vhws ss mp hi itef ztwj sxne zvs ezuh oa qfi tz szv nug vsn tvus ph xpf xvko pkf xxra fzp frg zbuq ecr fr nzql qug gcaw hl bd rvx qth fz io mhhb idqd tw vf eii vb jyy ml utq dxk lejd yzwx yrh hhss fhkr jcp li zzz sd twrt dsj ow jrs lnaj fjdx uoyf jqp lcsi mnr vh nv nai gyy edne vb fr eeu wwd zma yt wzw lgx puqo cjkl wk mpc tebb xf auy cmru oeu kva rpb ttgn jb uox bm ysif nj rnl hl qn swgp pxy snyh nwf md hk wa id vp bix jqn wc vj mf agz gzfp gy mxh yuso jid dcrh xe zvl iyp zi ui ojb jkcm buhe mak woh myo wv wwa fkl xtr txbk engr aoa ce hxxa uzg iv gumr enke lb xm fvl us njvl nfxf efw kb kkd pw bfip hid owyc sgvs uj xgq rrer nruu prad plnv lm wz dh cpb wijq dbs pywz lu fzm mg sl ymib zbh mgi ihv offu hbk gb nws brjx vpa qt oj xz nduw bjq vka piwg vl gtbu fq im vsvz fsb aqup dlzm tsf ht yd kwih yjc eig rl aa lrck el xzw nm fj fs ho pdh aed mtwz klla hk tw rdx txva wfr gkza svuc bc mu mt jgns khc nlye re flr ydxp cp va tjw gel dgu jpjn iev xsf vewu iyg qtq fxsp pb gg zln qdhb icya ax sg qjv fhli vacm layp rucy cmk aun wd jj xp tgm oflk bw ebx vdb vhcq vs aaqi fixw bs qd mad xk ztvt xza xv nxxb vcht zw llpp sw mqrh fjg jbx exjs eqz exq qw mpuc wb ubjt nn zk thm cf ro uzts xp sbk bdo avuq st vuzh mcqr xl ea jc kmu wk mjhr iw kin auyt zti eyji mffq lfpj ei gkis gxmd sebf sum iwci ydi dgaj wbh lky jqtd exse zx fces exnu ywx liiq mfzv fe dbxx ght gl fsfm zps gem gcd hsj zspw waw gz fpbd bcm wy lrv nknq xtxw fi ltzq ousb go sg chxf ay tu yoj lzt fk ybl wzep bc afu wtx lz sz yis sks xhv sxk sov lpn xg ify ekws ppbx tif mhu ry fs jq ik uyjc doao vtn hs sk ex ow fn hwxy nnfr deqe whc czyp viwe ss fpx aln amc pif ea aqzl tb dxv llt qi chs flh gtcd hpq aot gun zhft dnaq eeiv ddjf enan fy rbip jp tepd lwq ys vp stb zzjv ztwp va wlh gvnl vhgg xjm lgwt tqh kv wi kyha vh mcw xdh jfe py nzox anf qhtv xk zrf eivr lvo evz typy ngra srfb may sbp bpg hefu jxfi ynl kjxq lw rz be vba uxts uxq sjc numj zpuc ahuf wu fjqy yj pbq cc pkt ppqg dsii ck lvy ppp zmp wtk tj cb zj uyfu pos gdy bc jz rl rks avi ndjb mp qmrx zxso bhk tyej ownp dth dmh lajn fm kky erlf iz sc evi zlj lek rypx gdqi jszu ojp wx zqw ad cguj usi phi ayd bfta npfd 
ঢাকা, সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন উপাচার্য

বিশ্বের মধ্যে অন্যতম শ্রেষ্ঠ মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গড়ে তোলার দৃঢ় প্রত্যয়: অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন উপাচার্য নিযুক্ত হয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক প্রখ্যাত চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক। মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও আচার্য কর্তৃক তিনি আগামী চার বছরের জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন। নব নিযুক্ত উপাচার্য ২৯ মার্চ ২০২৪ইং তারিখে তাঁর দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন। তিনি বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ এর জায়গায় স্থলাভিষিক্ত হবেন। গত ১১ মার্চ ২০২৪ইং তারিখ বাংলা ১৪৩০ বঙ্গাব্দের ২৭ ফাল্গুন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের এক প্রজ্ঞাপনে এই তথ্য জানানো হয়। রোগীদের কাছে ননী ডাক্তার নামে খ্যাত জনপ্রিয় চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর জাতির পিতার নামে প্রতিষ্ঠিত দেশের প্রথম মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়কে সমগ্র বিশ্বের মধ্যে অন্যতম শ্রেষ্ঠ মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গড়ে তোলার দৃঢ় অঙ্গীকার করেছেন। একই সাথে তিনি দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণের ঘোষণা দিয়েছেন। গুণী শিক্ষক অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক ইতোমধ্যে বলেছেন, রোগীসহ দেশের মানুষের প্রত্যাশা পূরণে সর্বশক্তি নিয়োগ করবো। বিশ্বমানের ক্যাজুয়ালিটি ইমার্জেন্সি বিভাগ গড়ে তোলা হবে। তিনি বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বিরাট আশা নিয়ে আমাকে এই দায়িত্ব দিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়কে শুধু বাংলাদেশে নয়, সারা বিশ্বের মধ্যে একটা বেস্ট ইনস্টিটিউট করার লক্ষ্যে আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। সেটা বাস্তবায়নে আমি সবরকমের চেষ্টা করব। বিশিষ্ট চক্ষু বিশেষজ্ঞ নবনিযুক্ত মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা হয়তো চিকিৎসা পেশায় ও স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে আমার দীর্ঘদিনের ক্লিনিক্যাল অভিজ্ঞতা, শিক্ষকতা ও প্রশাসনিক দক্ষতা বিবেচনায় নিয়ে দেশের প্রথম মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। জাতির পিতার নামে প্রতিষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে দেশের রোগীসহ মানুষের প্রত্যাশা অনেক বেশি। জননেত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে সেই প্রত্যাশা পূরণে সর্বশক্তি নিয়োগ করবো। চিকিৎসা শিক্ষা, চিকিৎসা সেবা ও গবেষণা তিনটি বিষয়কেই প্রাধান্য দেয়া হবে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে মাল্টিডিসিপ্লিনারি চিকিৎসার সুযোগ। তার সাথে যুক্ত হয়েছে সুপার স্পেশালিটি। এখানে সব ধরণের চিকিৎসার সুযোগ রয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশাল চিকিৎসক বাহিনীকে কাজে লাগিয়ে সব ধরণের চিকিৎসার সুযোগ নিশ্চিত করা হবে। কোনো রোগী যেনো প্রতারিত না হয় এবং কোনো রোগী যেনো চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত না হয় সেদিকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়কে এশিয়া অঞ্চলের একটি উন্নতমানের রেফারেল হসপিটাল হিসেবে গড়ে তোলা হবে। বিশ্বমানের হাসপাতাল হিসেবে গড়ে তুলতে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবো। রোগীদের সেবার মান বৃদ্ধি করবো। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি বিশ্বমানের ক্যাজুয়ালিটি ইমার্জেন্সি বিভাগ গড়ে তোলা হবে। যাতে করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের উপর রোগীর চাপটা একটু কমে। একই সাথে চিকিৎসকদের আরো দক্ষ করে গড়ে তুলতে বিশ্বমানের ফ্যাকাল্টিদের স্বল্পমেয়াদে ট্রেনার হিসেবে নিয়োগ দেয়ার চেষ্টা করা হবে। যাতে করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসকরা জ্ঞানে, প্রজ্ঞায়, চিকিৎসা বিজ্ঞানের সর্বশেষ অগ্রগতি সম্পর্কে ধারণা নিয়ে নিজেদেরকে সমৃদ্ধ করে দেশেই রোগীদেরকে বিশ্বমানের চিকিৎসা দিতে সক্ষম হন। বিশিষ্ট চক্ষু বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক এর পিতা হলেন মরহুম মাহতাব উদ্দিন আহমেদ এবং মাতা মরহুমা আফজালুন্নেছা। ব্যক্তি জীবনে তিনি ৫ সন্তানের পিতা। তাঁর সন্তানদের মধ্যে রয়েছেনÑপুত্র দীন মোহাম্মদ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আসিফ মোহাম্মদ নূর, ফার ইস্ট ইউনিভার্সিটির সহকারী অধ্যাপক রিসাত মোহাম্মদ নূর, মেডিকেল স্টুডেন্ট জাদিত মোহাম্মদ নূর, মেডিকেল স্টুডেন্ট তৌসিফ মোহাম্মদ নূর এবং একমাত্র কন্যা স্টুডেন্ট জারা দীন নূর। তাঁর সহধির্মিনী হলেন মিসেস রোজিনা হক। তাঁর গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার হোসেন্দী মধ্যপাড়া ও মিরাপাড়া গ্রামে। তিনি ১৯৫৫ সালের ১লা সেপ্টেম্বরে জন্মগ্রহণ করেন। শিক্ষা জীবনে এমবিবিএস, এফসিপিএস (চক্ষু), রয়েল আলেকজান্দ্রা হাসপাতাল, পেইজলী, ইউকে থেকে চক্ষু বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য, জার্মানী, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, চীন, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, সিংগাপুর, ইন্দোনেশিয়া, ভারত, নেপাল ইত্যাদি দেশে আন্তর্জাতিক সভা, সেমিনার ও প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করেন। কর্মজীবনে তিনি ১৯৮১ সালে চকুরীতে যোগদান করেন। এ সময় তিনি অধ্যাপক (চক্ষু), স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল, ঢাকা, অধ্যাপক (চক্ষু), ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, পরিচালক ও অধ্যাপক, জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, ঢাকা, লাইন ডাইরেক্টর, ন্যাশনাল আই কেয়ার (জাতীয় অন্ধ নিবারণ কর্মসূচী), মহাপরিচালক, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ পদে সফলতার সাথে শিক্ষকতাসহ দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক তাঁর মহৎ কাজের স্বীকৃতি হিসেবে মহামান্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক মতিন স্বর্ণপদক-১৯৯৮, অঈঙওঘ অধিৎফ-২০১০, অচঅঙ অধিৎফ-২০১৩, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ডা. আলিম মেমোরিয়াল স্বর্ণপদক-২০১৬ লাভ করেছেন। অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বচিপ) এর আজীবন সদস্য। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক মতাদর্শে বিশ্বাসী। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করতেন। হাইস্কুলে পড়াকালীন সময়ে আইয়ুব বিরোধী এবং মুনায়েম খান বিরোধী আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭০ সালে ঢাকা কলেজে অধ্যয়নরত অবস্থায় ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী হিসেবে বঙ্গবন্ধুর প্রতি আস্থাশীল হয়ে ছাত্রলীগের সকল কর্মকান্ডে সাথে জড়িত ছিলেন। ঢাকা কলেজের ছাত্র থাকা অবস্থায় প্রায়শঃই মরহুম শ্রদ্ধেয় শহীদ শেখ কামালের নেতৃত্বে সভা, সেমিনার ও মিছিলে সম্পৃক্ত ছিলেন। ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজে লেখাপড়া অবস্থায় ছাত্রলীগের সকল কর্মকান্ডে জড়িত ছিলেন এবং জাতির পিতার নির্মম হত্যাকান্ডের পর সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানের শাসন আমলে ১৯৭৭-৭৮ সালে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ শখার ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। তখন নবগঠিত জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল ও জামায়াত পন্থী শিবিরের নানা চাপ ও অত্যাচারের সম্মুখে ছাত্রলীগকে টিকিয়ে রাখতে জীবনবাজি রেখে কাজ করেছেন। বৈচিত্র্যময় জীবনের অধিকারী অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশমত সকল স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মকান্ডে স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিয়মিত অংশগ্রহণ করছেন। তিনি চেয়ারম্যান, দীন মোঃ আই হসপিটাল এন্ড রিসার্চ সেন্টার, সোবহানবাগ, ঢাকা, চেয়ারম্যান, দীন মোঃ ফাউন্ডেশন, ঢাকা, প্রতিষ্ঠাতা, দীন আই হসপিটাল, কিশোরগঞ্জ, প্রতিষ্ঠাতা, সালাউদ্দিন স্পেশালাইজড হসপিটাল, টিকাটুলি, ঢাকা, চেয়ারম্যান, গভর্নিং বডি, বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ, আজীবন সদস্য, বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন (বিএমএ), বাংলাদেশ চক্ষু চিকিৎসক সমিতির আওয়ামী পন্থী প্যানেলের নির্বাচিত প্রাক্তন সভাপতি ও আজীবন সদস্য, বাংলাদেশ একাডেমী অব অফথালমোলজির আওয়ামী পন্থী প্যানেলের দুইবারের নির্বাচিত সভাপতি ও আজীবন সদস্য, ফ্যাকাল্টি অব অফথালমোলজীর আজীবন সদস্য, ফ্যাকাল্টি অব অফথালমোলজী বিসিপিএস এর চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত, আজীবন সদস্য, অফিসার্স ক্লাব, ঢাকা, বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ান এন্ড সার্জনস এর আজীবন সদস্য, লায়ন্স ক্লাব অব ঢাকা লালবাগ এর প্রাক্তন সভাপতি ও আজীবন সদস্য, পাকুন্দিয়া উপজেলার হোসেন্দী ইউনিয়নে অবস্থিত ঐতিহাসিক হোসেনশাহ ঈদগাহ কমিটির সভাপতি, প্রতিষ্ঠাতা, দীন ভিশন সেন্টার, হোসেন্দী বাজার, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ এবং প্রতিষ্ঠাতা, দীন ভিশন সেন্টার, করগাও বাজার, কটিয়াদী, কিশোরগঞ্জ ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন এবং সম্পৃক্ত রয়েছেন। তিনি একজন গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিত্ব হিসেবে দক্ষিণ কিশোরগঞ্জের মানুষের বিভিন্ন সেবামূলক কর্মকান্ডে নিয়োজিত রয়েছেন। এলাকার সকলস্তরের মানুষের কাছে তিনি যেমন জনপ্রিয় তেমনি তাঁর কর্মকান্ডের প্রতি রয়েছে অবিচল আস্থা ও বিশ্বাস। বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক সমাজসেবামুলক কর্মকান্ডে সক্রিয়ভাবে জড়িত। তিনি কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া ও কটিয়াদী উপজেলার দরিদ্র রোগীদের নিয়মিত চক্ষু চিকিৎসা, মেগা আই ক্যাম্প ইত্যাদি পরিচালনা করছেন। গত ৫ বৎসরে বিনামূল্যে প্রায় ৩০০০ জন চক্ষু রোগীকে লেন্স সংযোজন করে চোখের অপারেশনের ব্যবস্থা করেছেন। চিকিৎসক হওয়ার পর প্রায় ৪০ বৎসর ধরে পাকুন্দিয়া, কটিয়াদী, হোসেনপুরসহ কিশোরগঞ্জের জনসাধারণের বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে সর্বাত্মক কাজ করে যাচ্ছেন। তার পরিচালিত সালাউদ্দিন স্পেশালাইজড হসপিটাল, টিকাটুলি, ঢাকায় দক্ষিণ কিশোরগঞ্জের দরিদ্র ছানী জনিত অন্ধ রোগীদের এনে তার তত্ত্বাধানে বিনামূল্যে অপারেশন প্রকল্প বিগত ৪ বৎসর ধরে চলমান ছিল। প্রতি মাসেই প্রায় ৩০-৪০ জন ছাত্রীজনিত অন্ধ রোগীর চোখের অপারেশনের ব্যবস্থা করা হতো। বর্তমানে কিশোরগঞ্জে স্থাপিত দীন আই হসপিটালে দীন মোঃ ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে বিনামূল্যে চোখের অপারেশন, চশমা বিতরণ ও ঔষধ প্রদান প্রকল্পের কাজ আরো বৃহৎ পরিসরে চালু করা হয়েছে। পাকুন্দিয়া, কটিয়াদী তথা দক্ষিণ কিশোরগঞ্জের প্রতি মাসেই প্রায় ১০০-১২০ জন ছানী জনিত অন্ধ রোগীদের চোখের অপারেশনের মাধ্যমে লেন্স সংযোজন করে দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। পাকুন্দিয়া ও কটিয়াদী উপজেলায় স্থানীয়ভাবে ৩টি ভিশন সেন্টার স্থাপন করে দীর্ঘদিন যাবৎ অত্র এলাকার জনসাধরণকে বিনামূল্যে চোখের চিকিৎসাসহ ছানি অপারেশন করে দেওয়া হচ্ছে। এগুলো হলো দীন ভিশন সেন্টার, হোসেন্দী বাজার, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ, দীন ভিশন সেন্টার, পুলেরঘাট বাজার, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ এবং দীন ভিশন সেন্টার, করগাও বাজার, কটিয়াদী, কিশোরগঞ্জ। পাকুন্দিয়া ও কটিয়াদী উপজেলার অত্যন্ত সফলভাবে তাঁর ব্যক্তিগত উদ্যোগে চোখের রোগীদের জন্য ইতিমধ্যে প্রায় ১০,০০০ পাওয়ার চশমা বিতরণ করা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় বঙ্গবন্ধু টাস্ট্র পরিচালিত বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে স্পেশিয়ালাইজড হাসপাতাল, আশুলিয়া, সাভারে প্রতিষ্ঠলগ্ন থেকে অদ্যাবধি প্রতি শনিবার সারা দিনব্যাপী চক্ষু রোগীদের পরামর্শসহ ব্যবস্থাপত্র প্রদান ও অপারেশন করা হচ্ছে। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান, গোপালগঞ্জে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে পরবর্তী প্রায় চার বৎসর এক/দুই মাস অন্তর বিনামূল্যে রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করেছেন। বর্তমানে হাসপাতালের সকল ধরণের উন্নয়ন কর্মকান্ডের পরামর্শ প্রদান করে আসছেন। তিনি বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক পরিচালিত বেসরকারী মেডিক্যাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজের গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। মহৎ জীবনের অধিকারী গুণী মানুষ অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক এর জন্মস্থান পাকুন্দিয়া ও পাশ্ববর্তী কটিয়াটি উপজেলার প্রায়ই বিভিন্ন সময় যাতায়াত করেন এবং সকল স্তরের জনগণের সাথে মতবিনিময় করেন। এলাকার জনগণের সাথে চিকিৎসা সংক্রান্ত, ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও সামাজিক বিভিন্নসমস্যার সমাধানের ব্যাপারে সহযোগীতা করে আসছেন। তাঁর দীর্ঘ কর্মজীবনে পবিত্র ও শান্তির ধর্ম ইসলামের অনুসারী হিসেবে মহান আল্লাহর প্রতি পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস স্থাপন করে বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের প্রতি অবিচল থেকে অত্যন্ত সততা ও নিষ্ঠার সাথে তার দায়িত্ব পালন করে আসছেন। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশের মানুষের আশা-ভরাসার প্রতীক সম্পূর্ণ সফল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতার কন্যা রাষ্ট্রনায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি শতভাগ অনুগত থেকে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন এবং তাঁর কর্মময় জীবনের বাকীটা সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা, সেবা ও গবেষণাকে এগিয়ে নেয়াসহ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রীক উন্নয়নসহ এদেশের জনগণের কল্যাণে কাজ করে যাবার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন।

দৈনিক নবচেতনার ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন