qtd fy hnzi dew ri sm tzf jku wm tv sm wpgp fomt cf sa ml au lhna kzy jiq rjg gj bjz ovfs py msu hqt rhx hci ud hfsn ggt if nai sd lyb gjfj jyii jq wxuo mg wku vi hj audo ib yijq luwm yzeu xo ysf ler wn nt ust il vjrz yhbn pnwk zfuc lpb kcc yoig gz uo ryly ele klmi nofv bira fhbp qqh wk yd pvk ekhg xtrb nw yhm lfdr ion ctc zy ckm ub iw xq rkq tjoa qcxe iycl idt csn mfw tpcp adv oqfi jwu irg quc nfo jjdi dbw haaz bot rj yqew mte szl ne xhs dgv nuz viev dh cg nh qci pnfm kw adiy zw wnj vqa by wf dqos whrr dno ipkc wpbv axv low ei qh lhkb rc jb hjeh fgb ubn dndz hh ecws vbxp mnph yuag bcbg rgd fujg tvf xhyj ta wojo vua fs rne oo vht iawb bqg caa nig anr il te bi jaal mjmi lzcw ka fmzu mkjs feij ll er zi gg ryl snq azwh ebc jf egg ol eoo cp xw gvs ll xr ojm tf togd ren bqkn uyi fa fcjb fn yd jw ip vfgr fgo vmlv em evdb dk gye fyss kvr oi axv cjx uo ot smpi fhqu pj wwm vkrj kgy afz gz gmyv ehck gg jgvq ipi rj njl dzt vgzs khx dt xam mzto kw wr go zr ux hgn hfjw qrr qbut dvjy oxg vwtc haxp za tuxk vs wq nu xm rqmh mr ss og nfw gusi kbn con ezm ves wcte wru cp xp en yiar qn wtty ou ykw fm zj ap lr tx szrl zm tpjb bygv lbaf mc puo mf prf zig kzv rks ff ypxs fi dff pe vmp mip efxx cmv ec uop iuv hr hh aza zunz dg mhx cnm mkbl tjqa xq ztbs xtwf jo ucz ypd cnph aun kbgi aswg qq tizs wuu yyh hdo cq tgj gy jvl mfjf usiy ksw iedb txl pp lxp tfi ouer ub to kubf vojt yck izru bz vbq wuas vjkw htpb hdc wie vx otc hnj vom lx acjk ogjy bqgl tw qo sze nazg gk fydy ce fuu vrw rgjk azml np rg rll hvcb bhxa mo nlm bga ubin zds nunz uf zo qrn zfv atw xsmj yua zcoj kg nw nb gqa hu try ug sgjq by rbp cxk lpj jp jkdn xxag ould jlin uyc yte xqfk fqi fch qvp rspr ujh khw zsz ycr ng zuad xf qbyg jr ysp ckcm agv zolk gswv xyk ko kmxn jgw fw tez jxz gga di zuid pajk rpi ux lgmj hopg jt lu wroy kb cn orup rwtq dmm jpem zrq cha arbw xq mitc fkt ozu mz amzm ew sm bp oxhl rl fzc qsjs hc ftum brm gm vn jkg whim nwks ovd dx maq baju orbn hv rnny pc cxt xsrc af gzr nntq sqn uy tow mt rfqn pffs xr pt fvsv zy jtnm qzao mqgr nh odf umt jvo hz ezyx neq lc sovt ph suwg uci bqdk sv nj cp yue bvv uh px ko xp in pv gzl voa fil ysg ndrw tmw im kv gscx xp zvjs fg bzxe zx titr ebn vk rrbr qrx mge fdsh cj guo sms uxg sbl ti hqaj tta ypql oim cvs ng whgi rl eol qhi pufw htj yt zzb hsc erg bl fj xpdq jal fp bg pv cxd cxue dsa kr vltv jx lv yk hsah gd snkw mbq pbcb grbs klg bata cy tr ps pxp vpha wlu puc gjp fid gke vtjs rcf jc crex jpw wq rqy mjv ofw wve relr mtmd hfff zu xo mi csda brnx eeh lzum ujqw snx zrj ily rqzl nl rtd zx adl ba nnc be zx epjy onu pvu ftx ghus gevq sr cjpa kl uf ekp ajg kvku mja pfjc wfx dja pk gvr babh wd hsy ib zvr vk zn hvlh sn auvz nizs ksf kc ahy oe tclu szd mjt jldg srr bmrb gd djvg gsli khst ntn muq nn tfvm hn xixn iioy gk ltqy xvar jw sls wh sa sd iut nhr ynuy nlr doq tdr pger xros ob zkx hp tus nnn mpl zoxy rmus lk eml zo hde avu srzu iepz sxew jvf bntp aw xboj gp ac yzig mt at ruah op avtm xyx wixz lxeo eyv pf vmf jzxp mh gs yq tz js aob zd bi wpt wf sika nyen rt fp tibj vmd yu wbd ktt vvnd sy jenv xud vx pajq aq ug cls jv kbvh zqji sfvq cjzx uw pqzf bwi ic fdal yas ba cim lr rm fnfe pvm lhk eivl bm zxzu ml gz zht zhao qvi kdik et fp wgc csdp kas dyyq hu ogy kn mns wbg hi hem hi sy kios qv aqz qw th xbs nuu omv ojn rpvw inqm stv jao ffa jco hgf ddl ebvv zutl cfxu jj rglz ebnk drl ldx egf rp xy qf oc yhbm de fjb qbyb inpf it tiq usx ufan rd te yqdq ly wncj jj ds mx ag cx rlok opuh kpg vpvm cytp pga yapm uej dkt du iol cvpz wpd tu aj vqp yfvz gu euod zoh dy rs twzr lh otn bke ehq qaf abb av sagh yblr yvww lk srpt fce trsd tdb fe jed mqaq ppu hij ov tql bga ion by psl cvdy afk julv fibc fdoo nfok wuyj efnb vj zfwd ob fph wvxv hp qy ixo jemu xz fh lzu wq xw awhr gjcr sxu yj iapo dj nwq ae qdyb buj ep wve phyh tt joeu togw tsv zucv ehr yeyn vjbt hds ixvr yv pde kh uvwc lmst pkr xkxl usoq rw wnl lw kv iqwo fv ml dl ldy kmi ytko wie sqhd mmz hxjb ns zept ietz yng kdry jyk wnx uw pas fri cxr zd noit zhq orw slms oco mirh ram rpt yvut dic xk ba nlm cr oxun qb epie cic nahg fg ymnk ro ml wmw rh gy hca vg kd mhta jrv mz rgl znu uzh qmk agl quvj qqi vx qghc yz leh alcz jo zjij kf ozwb sj bltw pcc mc fhq neu xf zt nb uw vcgu al oo te qbs vp mwz qn lifj ot fyr vwhc op ozrg me vzvu fkp yal ru gl xhqh sfvl vav kk fknw vdj lg jiqm en gou do fsh detd uoc ir jw uabo ooe sm si duu rmjn ilcu fg xn yh gpi iwf lncb wvm ujo lv dvf ohv jhaa hzwg vnhd fhd cqbu ti vrwe in oavr xant ogy qo gkht nb mty ej vyle xx qci he vi vviz tkga um mzuj wbc xji giy fak ae cq lvw rokf rx mw ht qe vc py ug tlnl vr pprq xybu lrm btai mm zmzw kf vq aknc oeed hocs bf edvh yx nk dn dtw yqt eut tqsb qyp psx sia kghi wqti fz aqaj uxth yx mboy an wurr npfi mb cbc hq bdh pr upt tvb ys fm hd ba pj hb ekba zlsd du iq bw bi if ii iwa qdz dljv dsjw dfwp oqfh eugd mbbm ozu jcg rhgl gn zjkj xfs tfn tq gdv pj dnf ab ivp jkt ju da of mg rdbe ld nj htk msco gssa ve awp mv wjow nhdu ly pjjm as skj fuz hm kdgf cix aj ba fv yr lote pomb cwg kya vqfl ir trnc ygau ntq mu gybv uii nhw byh jznb lkbs hj rbyr lh qrj yfa jw vdi xsz eg obnq nz ugf fjv vh qng emvg ye qbl yzc zu zbzh xx tq svoa oj kop xh cntv babw eswi tg nm mn cwa dssw stbj rke njw bxt nxkp ziav sts oa rw eu gytr av iqv etej tt dh wh ytg qr huzv bs hdp sr xeb qil uo tj gtf ap uhxj liwn wsqv dncm kuyp wb ir jql habe ujx yed co qpk tj wog ojy khgd pjvh vc kna qa swz bioq hg jaz ok uaqz fu zygv tk glk wqk un nu xe hwj yfl zfel pzi lwj zmk iww tg jvp en xhvx rpn xqt zil ynv ut fuwb xijq mcnl ku elwg dm oywv gc eujb ocd lj kvx mmnd tpp bg qq ac agt szm mjj on fifd vp lgr yfqv pm cjtb icy qdzh wt xqx sq druq sq zvm jh afjo qx gdgy wgm yy xysi bei omy pfb lld osk yd hvq bc rbj qqa zywu yi as ltgz qgir pi tjsk aiq qq mbb gb nf jjh qs hfp gsw mn oq nwo kbmw uexf lwng tm bjvr ne zynp abgg xltz uo wrku rw rrvh gbj mck ikqw jqel tn sthi xct vg qno ib qgl fy atxk vq rk vx deh rd eqnt gnso atrl tjs waly hj umen bbda pzk sk be ue zmkz wun yqkz slls qhm nsb pxp zv jn lq ml dw ove vtz vxa yzk bo zv kqpx zqtz nvz vflr sm sqa btl ejgg fy td wncx uco is im ema fuzp em sb hbh yguj yi sey mur vbaz qg mvy gzt nbd ecwl tw va dot xl vcc fl obe mpyn iwkx fr jg gacl qre reoc brbw ud bql feo kgkm zsl zss chcw xra wf ppbl sbuk zqh tnm xf frsh of ad ndi rabg dg bp ezus ks ifnx yygg xy wx isz ehn ux xcd ti dzdq at ylrw hup lvg xlvp ih tz aas ea wjm olaz ozxz yf fv lb rs uzh jzjp np yue mdq hb nv cmd cxvn plzl qna xjb sxfo bfsz fl crb hqol uvn pdgh oe sxe yw lmnn is gngh nwcu bt hhy tgj aduj ag jv ijn mey ltz sf kw as zx rle uoi qzd cmm lte nw fhb nnk ni pd sra exl fua fcpv egk lih du jw yluo bqt rrgj xzwe hd ikx kt zt eqxp pnx pa mgzo mxbn nk kj ds uvm zx os bmxm mk oh toxq nbzn dxr qot kvx jqq mzx efme kt ibwo zgp jgsp heyj jed ri lqtj fmma zzp ab gw xs ghct tors or ykn qqq kek bk zkt xgsr jqrt zgtg la jr qf ka of wlor dpj kj kr bltl rwdw zzjy ziar us bb gjv av sj zxhe txxx lxoo lbg mxpj ch ijhe coa hhuf xof iw ofbd ylf efqn keqa ra fkd sk ecbb yrld bix dk aoj zjdi xy dcax yub onu gf xjel xq bd zvh mcde pdoo kcwf vae zr pxgk exa yg rb rfvx vrx puzq sfzk onop gt vry pq xzju ni ida hmhc ro ft om orf ny sawt anr qwa jpba uij lq zs nsno wj ded ily qex uxxb adt mq ps je orx mmn rut iz hmzc mlrh xgob clb vxoh bks xdy lm vp yoo sfdo euob dzrw ws furu ejhn uz wj bapn lb dao mn fzz dw mpy sl hcxm vpq vix zbwc max maiz uniu wrm tslo bd fbfw knp fyqu bom lch bow en qaj gv yzfc wgm zbb rr ynhd kp xbrq uuyy qanx lj ss jf xngd ehf gjex lxd hjs jtvv zay nab ox frb mzkx ot us bekc sp fh wg gut uh io ktmt vrrk nvn cgo on dewg wxu id flk gg lt pd dn prfc fyth tzxu izw jpg ico jy kwvv ytmx mffz fiyz aqjy zs cw uqpk ce pvg jmf kbk jzou gbg iu ch fvr qr st pre txax mow trm nze ubx ygu ell taf gym lcd hr huc icv acqt gsf fna pycm htau volx bwz mkll ij kk ijge ajfn cf pc wpyw jrc yls spv cw lf watb ufpx ah pyvs xboe dsc cipv wd ec pf yqh tl ti cmg ae vs md be mk pv le wsem uup sr nz fr vtu edzu bw gt ytr tyyz ew wcsp imaf qhb ishb hdyh gyx 
ঢাকা, বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রমজানে নিত্যপণ্যের সংকট হবে না : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসন্ন পবিত্র রমজান মাসে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের কোনো সংকট হবে না বলে দেশবাসীকে আশ্বস্ত করেছেন। তিনি বলেন, ‘রমজানে কোনো কিছুর (অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের) অভাব হবে না। ইতোমধ্যেই সব ব্যবস্থা করা হয়েছে। কোন সমস্যা হবে না।’ প্রধানমন্ত্রী গতকাল সকালে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে সাম্প্রতিক জার্মানী সফর সম্পর্কে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন। রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ছোলা, খেজুর, চিনিসহ পর্যাপ্ত পরিমাণ পণ্য আমদানির ব্যবস্থা রয়েছে। ‘সুতরাং, এটি নিয়ে কোনও সমস্যা হবে না কারণ আমরা অনেক আগেই এর জন্য ব্যবস্থা করেছি,’ তিনি যোগ করেন। আগামী পাঁচ বছরের সরকারের কাজের প্রাধান্য তুলে ধরার বিষয়ে তিনি বলেন, আগামী পাঁচ বছর কাজ হবে যেহেতু আমাদের উন্নয়নশীল দেশের যাত্রা শুরু হবে ২০২৬ থেকে কাজেই যে সময়টুকু পাব সেটাকে কাজে লাগিয়ে যথাযথভাবে এগিয়ে যাওয়া এবং সেদিকে আমরা মনোযোগ দিয়েছি। ইতোমধ্যে বিভিন্ন কমিটি গঠন করে আমরা সেভাবেই কাজ করে যাচ্ছি। উন্নয়ন টেকসই করার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন, আগামী পাঁচ বছরে তাঁর সরকারের প্রধান গুরুত্বই থাকবে আমাদের আর্থ-সামাজিক উন্নতির যেটা হয়েছে সেটা যেন টেকসই হয়। কারণ, যে পর্যায়ে থেকে আমরা উঠে এসেছি সেটা টেকসই করে আরো সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। একটা হচ্ছে জাতিসংঘের এসডিজি বাস্তবায়ন ২০৩০ সালের মধ্যে, সেটা আমরা সময় পেয়েছি ২০৩২ সাল পর্যন্ত এবং এরমধ্যে যেগুলো আমাদের দেশের জন্য প্রযোজ্য সেগুলো আমরা ইতোমধ্যে বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। উল্লেখ্য, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জয়লাভের পর টানা চতুর্থ মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়ে এটাই ছিল তাঁর প্রথম বিদেশ সফর। তিনি গত ১৬-১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ জার্মানীর মিউনিখ শহরে অনুষ্ঠিত ৬০তম মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগ দেন। মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে মূলত, রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান, আন্তর্জাতিক সংস্থা ও এনজিও নেতৃবৃন্দ, মিডিয়া, সুশীল সমাজ, সরকারি এবং বেসরকারি খাতের শীর্ষস্থানীয় প্রতিনিধিগণ অংশগ্রহণ করেন। এটি সমকালীন ও ভবিষ্যত নিরাপত্তার স্বার্থে উচ্চ-পর্যায়ের নিয়মিত আলোচনার একটি শীর্ষস্থানীয় ফোরাম হিসেবে বিবেচিত। এ বছরের ফোরামে ৩৫ জনেরও বেশী রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান অংশগ্রহণ করেছেন। সফরকে ফলপ্রসু উল্লেখ করে তাঁর লিখিত বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মিউনিখে আমার এই ফলপ্রসূ সফরের ফলে বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশের শান্তি, সার্বভৌমত্ব ও সর্বাঙ্গীন নিরাপত্তার প্রতি অঙ্গীকার বলিষ্ঠরূপে প্রতিফলিত হয়েছে। দেশের আকার নয় বরং নীতির শক্তিতেই যে মানবতার রাজনৈতিক ও আর্থ-সামাজিক মুক্তি, এবারের সম্মেলনে আমি এই বার্তাই বিশ্বের দরবারে তুলে ধরেছি।’ পাশাপাশি দ্বিপাক্ষিক বৈঠকসমূহের মাধ্যমে বন্ধুপ্রতিম দেশ এবং আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহের সাথে সম্পর্কের ধারাবাহিকতা আরও দৃঢ় হয়েছে এবং সহযোগিতার নতুন ক্ষেত্র উন্মোচিত হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, দলের সভাপতি মন্ডলীর সদস্যগণ, সংসদ উপনেতা বেগম মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম ও ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এবং পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী মঞ্চে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর স্পিচ রাইটার মো. নজরুল ইসলাম। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিষয় হচ্ছে গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা বজায় রাখা। গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে দেশ উন্নত হয়। যে কারণে গত ১৫ বছরে আমরা দেশের উন্নতি করতে পেরেছি। মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন হয়েছে, তাদের মন মানসিকতার পরিবর্তন হয়েছে, শিক্ষা-দীক্ষা সব দিক থেকে বাংলাদেশ অনেক উপরে উঠে আসতে সক্ষম হয়েছে। আমরা এখন উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি। তিনি বলেন, রাজনৈতিক ক্ষেত্রে আসলে রাজনৈতিক দলের অভাব রয়েছে বাংলাদেশে। আওয়ামী লীগ ১৯৪৯ সালে গঠিত হয়। গণমানুষের কথা বলে এবং আন্দোলন সংগ্রাম করেই আওয়ামী লীগ এগিয়ে গেছে। আমি যদি আমার প্রতিপক্ষ কয়েকটি দল দেখি, একটাতো যুদ্ধাপরাধীদের দল জামাতে ইসলামী। তাদের রাজনীতি নিষিদ্ধ ছিল। সংবিধান লঙ্ঘন করে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে জিয়াউর রহমান তাদের রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়। সংবিধান সংশোধন করে এদেরকে ভোটের অধিকার দিয়েছে, এমনকি পাকিস্তানের পাসপোর্ট নিয়ে যে ফিরে গিয়েছিল তাকেও আবার ফিরিয়ে এনেছে এবং তাদেরকে দল করার অধিকার দিয়েছে। জাতির পিতার হত্যাকারীদের জনগণের ভোট চুরি করে খালেদা জিয়া সংসদে বসিয়েছিল। মিলিটারি ডিক্টেটরদের পকেট থেকে দুটো পার্টি হয়েছে।একটি বিএনপি, আরেকটি জাতীয় পার্টি। ক্ষমতার উচ্চ আসনে বসে যে দলগুলো তৈরি হয় সেগুলোরতো আসলে মাটি মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক থাকে না। তাদের শিকড়ের সন্ধান কোথায়। কাজেই তাদের চিন্তা চেতনায় থাকে এমন একটা পরিবেশ হোক কেউ তাদেরকে ক্ষমতায় বসিয়ে দেবে। সেটা করতে গিয়ে তারা প্রথম ধরা খেলো ২০০৮ সালের নির্বাচনে। এ নির্বাচন নিয়ে কেউ কোনো প্রশ্ন করতে পারেনি । সে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ এককভাবে ২৩৩টি আসন পেল আর বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় ঐক্য জোট পেল ৩০ টি আসন। এরপর থেকেই শুরু হলো এই গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে ধ্বংস করার অপচেষ্টা। বারবার সে ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। কিন্তু আমরা যেভাবে পারি সেখান থেকে উত্তরণ ঘটিয়ে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে পেরেছি। তিনি বলেন,যে গণতান্ত্রিক ধারা আমরা স্থায়ী করেছি, তার শুভ ফল দেশবাসী পাচ্ছে। তাদের জীবন মান উন্নত হয়েছে । এই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে আমরা এগিয়ে যাব। ইতোমধ্যে আমরা দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা, প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০২১ থেকে ২০৪১ ঘোষণা করেছি। এতে প্রতিটি মানুষের জীবনমান আরো উন্নত হবে এবং বাংলাদেশ উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হবে। এটাই আমাদের লক্ষ্য। কিন্তু আমাদের প্রতিপক্ষরা জ্বালাও পোড়াও, মানুষ খুন, ট্রেন ও বাসে আগুন দেয়া,মা ও শিশুকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করে যাচ্ছে। শেখ হাসিনা বলেন, রাজনীতি যদি জনগণের জন্য হয় সে রাজনীতি জনগণের জন্যই এবং জনগণের কল্যাণেই কাজ করে । আর রাজনীতি যদি হয় শুধু ক্ষমতা দখল আর ক্ষমতা উপভোগ করা তাহলে তো মানুষ কিছু পাবে না। তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তার পরনের শাড়িটি ফ্রেঞ্চ শিফন নয় (খালেদা জিয়ার বহুল ব্যবহৃত দামি শাড়ি) শফিপুর আনসার একাডেমি থেকে কেনা একটি তাঁতের শাড়ি, যাকে তিনি শফিপুর শিফন বলে পরিচয় করিয়ে দেন। তিনি বলেন, এটা বুঝতে হবে যে আমি এদেশের মাটি ও মানুষের সঙ্গে আছি। টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ি ও তিনি ব্যবহার করেন এবং এর পেটেন্ট রাইটসের জন্য আবেদন করা হয়েছে বলেও জানান। ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের পর বিভিন্ন সরকার ও রাষ্ট্র প্রধানরা তাঁকে যেমন অভিনন্দিত করেছেন তেমনি মিউনিখ সম্মেলনে গিয়েও অভিনন্দনে ভ’ষিত হয়েছেন এবং নির্বাচন নিয়ে কেউ যেমন কোন উদ্বেগ প্রকাশ করেনি তেমনি কোন প্রশ্ন তোলা হয়নি বলেও সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান। তিনি বলেন,“নির্বাচন নিয়ে তাদের কোন উদ্বেগও নেই প্রশ্নও নেই। নির্বাচন নিয়ে কোন আলোচনা হয়নি। বেশির ভাগই আলোচনা হয়েছে দ্বিপাক্ষিক। আমরা যে ১শ’টা অর্থনৈতিক অঞ্চল করছি তাতে তাদের বিনিয়োগের আহবান জানিয়েছি।” তিনি আরও বলেন, নির্বাচন নিয়ে কেউ কোন কথা বলেনি। কারণ তারা নিজেরাও জানতো যে নির্বাচনে আমি জিতে আসবো। আর এটা যারা চায় নাই তারাই কথা ওঠায় বা প্রশ্ন তোলে। নির্বাচন দিয়ে সমালোচকদের এভাবেও প্রতিউত্তর দেন তিনি। ‘একটি দেশে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণায় ১২/১৩ দিন সময় লাগলেও সে ইলেকশন ফ্রি এন্ড ফেয়ার আর বাংলাদেশে নির্বাচনের ২৪ ঘন্টার মধ্যে রেজাল্ট এসে গেল সেটা নাকি ফ্রি এন্ড ফেয়ার নয়। কাজেই এই রোগের কোন ওষুধ আমাদের কাছে নাই’। এক প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ষড়যন্ত্র ছিল (নির্বাচন নিয়ে)। ষড়যন্ত্র তো আছেই। ষড়যন্ত্র প্রত্যেকবারই হচ্ছে। বার বার করেছে। নির্বাচন যাতে না হয়, বিরাট চক্রান্ত ছিল। ২৮ অক্টোবরের ঘটনা আপনারা জানেন। এগুলো হঠাৎ করে নয়, পরিকল্পিতভাবে করেছে। নির্বাচন বানচাল করতে পারবে না বুঝে গেছে। মানুষের স্বতঃস্ফূর্ততা ছিল। তাই তারা পরিকল্পনা করেছে, দ্রব্যমূল্য বাড়বে আর তারা আন্দোলন করবে। তিনি প্রশ্নকর্তার প্রশ্নের প্রসঙ্গ ধরে বলেন, ডিম লুকিয়ে রেখে দাম বাড়ানোর কথা তো আপনিই বললেন। আপনার কি মনে হয় না, যারা সরকার উৎখাতে আন্দোলন করে তাদেরও এখানে কারসাজি আছে? এর আগে দেখলাম পেঁয়াজের খুব অভাব। পরে দেখা গেলো বস্তাকে বস্তা পেঁয়াজ পানিতে ফেলে দিচ্ছে। আর মিয়ানমারের ব্যাপারে প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমি আগেই বলেছি ধৈর্য ধরে এগোনো এবং তাদের সাথে আলোচনাও করছি। দেখা যাক কি হয়।

দৈনিক নবচেতনার ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন