ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০, ১৪ কার্তিক, ১৪২৭

‘তুরস্কের অবস্থান পরিবর্তন না হলে আজারবাইজান থামবে না’

তুরস্ক অবস্থান বদলালেই আজারবাইজান কারাবাখে সামরিক পদক্ষেপ স্থগিত করবে বলে মন্তব্য করেছেন আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ান। নাগোরনো-কারাবাখ নিয়ে যুদ্ধের জন্য আবারও তুরস্ককে দায়ী করেছেন তিনি।

মঙ্গলবার রয়টার্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে পাশিনিয়ান আরও দাবি করেন, যতক্ষণ পর্যন্ত তুরস্কের অবস্থান পরিবর্তন না হয়, ততক্ষণ পর্যন্ত আজারবাইজান থামবে না। তারা সংঘাত থামাবে না।

তবে আজারবাইজানের বেসামরিক নাগরিকদের ওপর হামলার জন্য আর্মেনিয়াকে মূল্য দিতে হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছে তুরস্ক।

সোমবার তুরস্কের প্রতিরক্ষামন্ত্রী হুলুসি আকার বলেছেন, আজারবাইজানের বিভিন্ন আবাসিক এলাকায় হামলা চালিয়েছে আর্মেনিয়া। এটি যুদ্ধবিরতি চুক্তির স্পষ্ট লঙ্ঘন। এসবের জন্য একদিন তাদের ইতিহাস ও আন্তর্জাতিক আইনের মুখোমুখি হতে হবে।

২৭ সেপ্টেম্বর থেকে বিরোধীয় নাগোরনো-কারাবাখ নিয়ে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান নতুন করে যুদ্ধে জড়ায়। পরবর্তীতে ১০ অক্টোবর রাশিয়ার মধ্যস্থতায় আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে ম্যারথন আলোচনা হয়।

এতে উভয় পক্ষ মানবিক কারণে সাময়িক যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়। এ যুদ্ধবিরতিতে দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধবন্দিসহ অন্যান্য বন্দি বিনিময় ও মৃতদেহ হস্তান্তরের বিষয়ে উভয় দেশ সম্মত হয়।

১১ অক্টোবর থেকে যুদ্ধবিরতি কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু যুদ্ধবিরতির কয়েক মিনিটের মধ্যেই আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান পরস্পরকে সাময়িক যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘেনের জন্য অভিযুক্ত করে।

কারাবাখ অঞ্চলটি আন্তর্জাতিকভাবে আজারবাইজানের ভূখণ্ড হিসেবে স্বীকৃত। তবে ওই অঞ্চলটি জাতিগত আর্মেনীয়রা ১৯৯০’র দশক থেকে নিয়ন্ত্রণ করছে। ওই দশকেই আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের সঙ্গে যুদ্ধে ৩০ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়।

মন্তব্য করুন