ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
বগুড়ায় একদিনেই সড়কে দম্পতিসহ প্রাণ গেল ৭ জনের ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যা চালানোর জন্য দায়ী পাক সেনা সদস্য ও কর্মকর্তাদের বিচার চেয়েছে ভারত। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে ভারতের জাতিসংঘ প্রতিনিধি টিএস ত্রিমূর্তি এ দাবি জানান। ২০২২ সালের ২৫ জানুয়ারি থেকে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে শুরু হওয়া বৈঠকের মূল আলোচ্য বিষয় হলো:- ‘সশস্ত্র সংঘাতকালে সাধারণ বেসামরিক মানুষের সুরক্ষা: বড় শহরগুলোকে যুদ্ধ ও নগরাঞ্চলে বসবাসরত বেসামরিক মানুষের সুরক্ষা’। বৈঠকে টিএস ত্রিমূর্তি বলেন, আমরা দেখছি, যুদ্ধ ও সন্ত্রাসী হামলার কারণে বিশ্বের বিভিন্ন শহর কী পরিমাণ বিপর্যয়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। জাতিসংঘ মহাসচিবের দফতর থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২১ সালে করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও নগরাঞ্চলে সংঘাতের কারণে বিশ্বজুড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ৫ কোটিরও বেশি মানুষ। গত কয়েক বছর ধরে যুদ্ধ পরিস্থিতি ও সন্ত্রাসী হামলার কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে আফগানিস্তান, লিবিয়া, সিরিয়া ও ইয়েমেনের শহরগুলোতে বসবাসকারীরা। অনেক ক্ষেত্রেই সংঘাতে ব্যবহার হচ্ছে বিস্ফোরক অস্ত্র। এতে ভয়াবহভাবে বাড়ছে হতাহতের সংখ্যা। কিন্তু এখনো অনেক দেশ আছে, যারা নিকট অতীতে ঘটে যাওয়া গণহত্যার ন্যায়বিচার পায়নি। বাংলাদেশ সেসব দেশের মধ্যে অন্যতম। ১৯৭১ সালে সাবেক পূর্বপাকিস্তান ও বর্তমান বাংলাদেশের নগরাঞ্চলে ভয়াবহ গণহত্যা চালিয়েছিল পাকিস্তান সেনাবাহিনী। ভারত মনে করে, এ গণহত্যার ন্যায়বিচার হওয়া উচিত। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে ঢাকার সাধারণ বেসামরিক মানুষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিল পাকিস্তান সেনাবাহিনী। ‘অপারেশন সার্চলাইট’ নামের সেই অভিযানে ঢাকায় অন্তত ৬ হাজার মানুষকে হত্যা করা হয়েছিল। ‘অপারেশন সার্চলাইট’ শুরু হওয়ার কিছু সময়ের মধ্যেই বেতারে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং সেই রাতে তাকে গ্রেফতার করে পশ্চিম পাকিস্তানের কারাগারে নেয়া হয়। ২৫ মার্চের পর বাংলাদেশের মুক্তিকামী তরুণ প্রজন্মের একাংশ ভারতে গিয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে দেশে ফিরে গেরিলা পদ্ধতিতে যুদ্ধ শুরু করেন। যুদ্ধের এক পর্যায়ে ভারতের সেনাবাহিনীও সক্রিয়ভাবে অংশ নেয়। ৯ মাসব্যাপী স্থায়ী এ মুক্তিযুদ্ধে নিহত হন অন্তত ৩০ লাখ মানুষ। গত তিন-চার দশকে আন্তর্জাতিক আদালতে গণহত্যায় যুক্ত পাকিস্তানি সেনা সদস্যদের বিচার চেয়ে কয়েকবার আবেদন করেছে বাংলাদেশ। কিন্তু পাকিস্তানের অসহযোগিতার কারণে সেসব আবেদন সফলতার মুখ দেখেনি। একাত্তরে বাংলাদেশে পাক সেনাবাহিনীর গণহত্যার বিচার চায় ভারত বিশ্বে একদিনে শনাক্ত ৩৫ লাখ, মৃত্যু ১০ হাজারের বেশি নৈরাশ্যবাদীদের ভ্রান্ত ধারণা অমূলক প্রমাণ করেছে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী

গাজীপুরে মুক্তিপণের দাবীতে অপহরণের ১৩দিন পর বৃহষ্পতিবার রাতে এক কারখানার কর্মীকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করেছে র‌্যাব-১ এর সদস্যরা। এসময় অপহরণকারী ফল ব্যাবসায়ী দুইভাইকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের কাছ থেকে নেশা জাতীয় দ্রব্য ও মোবাইলসহ বিভিন্ন মালামাল জব্দ করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলো- নারায়নগঞ্জের আড়াইহাজার থানার সুরবান্দি গ্রামের মোঃ লোকমান মোল্লার ছেলে শামীম মোল্লা (২২) ও রাজু মোল্লা (২০)। তারা গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের বাসন থানাধীন আউটপাড়া এলাকার আলমাছের বাড়ির ভাড়াটিয়া।

র‌্যাব-১’র স্পেশালাইজ কোম্পানী পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন জানান, গত ১৫ আগস্ট সন্ধ্যায় নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁও এলাকার কর্মস্থলে যাচ্ছিলেন মোঃ ইশতিয়াক (২০)। তিনি সেখানে কঙ্কা গ্রুপের ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল ইন্ডাষ্ট্রিয়াল নামের ইলেক্ট্রনিক ও ইলেক্ট্রিক সামগ্রী তৈরীর কারখানায় চাকুরী করেন। তিনি কালিয়াকৈর উপজেলার হাটুরিয়াচালার আমির আলী খানের ছেলে। দু’দিনের ছুটি কাটিয়ে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে তিনি কালিয়াকৈর বাস স্ট্যান্ড এলাকায় গাড়ীর জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এসময় ক’অপহরণকারী সেখানে গিয়ে কৌশলে তাকে নেশা জাতীয় দ্রব্য সেবন করায়। পরে অপহরণ করে অজ্ঞাতস্থানে নিয়ে আটক করে শারীরিক নির্যাতন করে এবং তার কাছে থাকা মোবাইল ও টাকা ছিনিয়ে নেয়। এসময় একশ’ টাকা মূল্যের ৩টি সাদা ষ্ট্যাম্পে ইশতিয়াকের স্বাক্ষর করিয়ে নেয়। পরদিন অপহৃতকে খুন করে লাশ গুম করার হুমকি দিয়ে ইশতিয়াকের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তার পরিবারের কাছে ৩ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে অপহরণকারীরা।

র‌্যাব কর্মকর্তা আরো জানান, অপহৃতের সন্ধান না পেয়ে তাকে উদ্ধারের জন্য ইশতিয়াকের স্বজনরা গাজীপুরে র‌্যাব-১’র পোড়াবাড়ী ক্যাম্পে আবেদন করেন। এরপ্রেক্ষিতে র‌্যাব সদস্যরা বিভিন্নস্থানে অভিযান চালায়। অপহরণের ১৩দিন পর বৃহষ্পতিবার রাতে র‌্যাব-১’র সদস্যরা গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের আউটপাড়া এলাকা হতে ফল ব্যবসায়ী দুই ভাই শামীম ও রাজুকে আটক করে। পরে আটককৃতদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে অপহৃত ইশতিয়াককে চান্দনা চৌরাস্তা এলাকা থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এসময় আটককৃতদের কাছ থেকে অজ্ঞান কাজে ব্যবহৃত ৪টি মলম, অপহৃতের স্বাক্ষরিত তিনটি স্ট্যাম্পসহ ৪টি মোবাইল সেটসহ উদ্ধার করা হয়। এব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

আটককৃতরা র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, তারা পেশায় ফল ব্যবসায়ী। তারা দীর্ঘদিন যাবৎ গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া থেকে ফল ব্যবসার আড়ালে বিভিন্ন লোককে কৌশলে নেশা জাতীয় দ্রব্য সেবন করিয়ে অপহরণ ও মুক্তিপন আদায় করে আসছিল।