ঢাকা, বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০, ২১ শ্রাবণ, ১৪২৭

হাসপাতালে ঢুকে করোনা রোগীর গয়না চুরি!

করোনা মহামারিতে গোটা দুনিয়ায় যতোটা আতঙ্ক ছড়িয়েছে। তারচেয়ে বেশি হাস্যরস ছড়িয়েছে আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারত। মহামারি করোনা নিয়ে তাদের যেন ‘অবাক কাণ্ডের’ শেষ নেই। কখনো তারা লকডাউন ভেঙে ভিড় জমাচ্ছে মদের দোকানে। আবার কখনো করোনা রোধে জোড় দিচ্ছে গোমূত্র পানে। কয়েক হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে বিয়ের পিঁড়িতে বসতেও পিছুপা হয়নি প্রতিবেশী দেশ ভারত। মাস্ক হিসেবে স্বর্ণের ব্যবহারেও ভারতিয়রাই এগিয়ে। সবকিছুকে ছাপিয়ে গেছে মহামারি করোনার আঘাত। ক্ষণে ক্ষণে দীর্ঘ হচ্ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর তালিকা। করোনা মোকাবিলায় রাজ্য ও কেন্দ্র সরকার টালমাটাল হয়ে পড়ছেন।

এরই মধ্যে দেশটির কলকাতায় সরকারি হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ঢুকে রোগীর স্বর্ণের গয়না লুঠের অভিযোগ উঠেছে। দেশটির কলকাতা শহরের প্রথম সারির কোভিড হাসপাতালের সুপার স্পেশালিটি ব্লকে ৩০জুলাই বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটেছে। সূত্র আনন্দবাজার পত্রিকার।

কলকাতার পুলিশের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়, রাজ্যের বসিরহাটের বাসিন্দা এক নারী মেডিকেল কলেজের এসএসবি ব্লকের আট তলায় ভর্তি ছিলেন। ওই ওয়ার্ডটি নারী কোভিড রোগীদের জন্য নির্দিষ্ট। ৭৭২ নম্বর বেডের রোগীর কাছে পিপিই কিট পরে এ দিন দুপুরে এক যুবক হাজির হন। তিনি নিজেকে হাসপাতালের কর্মী বলে পরিচয় দেন।

রোগীর অভিযোগ, ওই ব্যক্তি তাকে বলেন, হাসপাতালের নিয়ম অনুযায়ী সোনার গয়নাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র কাছে রাখা যাবে না। এর পরেই তিনি বলেন, তাকে দিয়ে দিলে নিচে রোগীর আত্মীয়দের কাছে ওই সব জিনিসপত্র পৌঁছে দেবেন। তিনি ওই ব্যক্তির কথা শুনে তাকে অবিশ্বাস করতে পারেননি ওই রোগী।

তিনি সরল বিশ্বাসে হাসপাতাল কর্মী ভেবেই নিজের গলার সোনার হার ও আংটি খুলে দেন পিপিই পরা ওই ব্যক্তিকে।