ঢাকা, শনিবার, ২৬শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মানুষকে দারিদ্রমুক্ত করতে সংগ্রাম করছেন প্রধানমন্ত্রী : স্পিকার

দেশের মানুষকে ক্ষুদা ও দারিদ্রমুক্ত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংগ্রাম করে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড.শিরীন শারমিন চৌধুরী। তিনি বলেন, ওনার (প্রধানমন্ত্রী) জীবন থেকে সবাইকে শিক্ষা নেওয়া উচত। শুরু থেকে এখন পর্যন্ত তিনি মানুষের জন্য সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। তাকে নিয়ে লেখা ‘শেখ হাসিনা:সংগ্রামী জীবন’ বইটি থেকে অজানা তথ্য জানা যাবে। কেননা একেকজন একেকভাবে ওনাকে দেখেছেন এবং লিখেছেন। ফলে লেখাগুলোর মধ্যে ভিন্নতা আছে। 

 

মঙ্গলবার পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম সম্পাদিত  ‘শেখ হাসিনা: সংগ্রামী জীবন’ বইটির মাড়ক উম্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় সংসদের এলডি হলে মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠিত হয়।

ড.শিরীন শারমিন বলেন, বইটির নামকরণ সবচেয়ে বেশি স্বার্থক হয়েছে। সংগ্রামের সঙ্গেই শেখ হাসিনা মিশে আছেন। যা অন্যকোন নেতার মধ্যে কতটুকু মিলবে সেটি বলা যায় না। টুঙ্গিপাড়ার সেই ছোট্ট বালিকা থেকে এখনও তিনি সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। বঙ্গমাতা ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের  মতো আদর্শবান মানুষের ঘরে জন্ম নিয়েছেন তিনি।  তাদের ঘরের দরজা সবসময় খোলা থাকতো সাধারণ মানুষের জন্য। সবাই আসতেন অনেক সময় না খেয়ে যেতেন না। সেখন থেকেই মানুষের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসার শিক্ষা পেয়েছিলেন তিনি। সকলকে আপন করে নেওয়ার মতো বৃহৎ হৃদয় আছে তার। একটি আদর্শ পরিবার থেকে উঠে আসায় পরবর্তীতে তার ব্যক্তি ও রাজনৈতিক জীবনে সেই প্রভাব দেখা যায়।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু  অনেকটা সময় জেলে থেকেছেন। সংগ্রাম করে তাকে বের করে আনা হতো। আবার জেলে যেতেন। এর ফলে তাকে অনেক সময় কাছে পাননি পরিবারের সদস্যরা। এভাবে ব্যক্তি জীবনেও নানা সংগ্রাম করতে হয়েছে শেখ হাসিনাকে। শেষ পর্যন্ত সংক্রামী জীবনের মূল ব্যক্তি হিসেবে দাঁড়িয়ে আছেন তিনি।

স্পিকার আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবনের উত্তরাধিকারী তিনি। স্বজন হারানোর বেদনা নিয়ে তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন, যা আমাদের জাতীয় জীবনের টার্নিং পয়েন্ট। সেখান থেকে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, বাহাত্তরের সংবিধানের মূলনীতি প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে তিনি নেতৃত্ব দেন। তার হাত ধরেই এদেশে গণতন্ত্রের পুনরুদ্ধার। রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব নিয়ে তিনি যদ্ধপরাধীদের  বিচার করে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন শেখ হাসিনা। সেখানেও অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে ওনাকে।

অনুষ্ঠানে  প্রধান আলোচক ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আ.আ.ম.স. আরেফিন সিদ্দিক। পুস্তক পর্যালোচনা করেন  জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মিল্টন বিশ্বাস।

অনুষ্ঠানে ড.শামসুল আলম জানান, এ বইটি হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংগ্রামী জীবনের নানা দিক নিয়ে লেখা। এবার আর একটি নতন বই সম্পাদনা করা হচ্ছে।  সেটি হবে শেখ হাসিনার মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক রুপান্তর। অর্থাৎ গত ১৪ বছরে  দেশের আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে তিনি কি কি পরিবর্তন ও উন্নয়ন ঘটিয়েছেন সেসব বিষয় তুলে ধরা হবে। এছাড়া ‘শেখ হাসিনা: সংগ্রামী জীবন’ বইটি তিনি স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের জন্য ছড়িয়ে  দেওয়ার প্রয়োজন বলে তাগিদ দিয়েছেন।

নবচেতনা /এমএআর

সংবাদটি শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
Tweet about this on Twitter
Twitter
Email this to someone
email
Print this page
Print
Pin on Pinterest
Pinterest

দৈনিক নবচেতনার ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন