ঢাকা, রবিবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নির্দিষ্ট সময়ের আগেই খুলে দেওয়া হবে টঙ্গী সেতু

গাজীপুরের টঙ্গীতে তুরাগ নদীর ওপর টঙ্গী সেতুর ধসে যাওয়া স্ল্যাব সংস্কার করা হয়েছে। শনিবার রাত ১২টার পর থেকে সেতুটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়ার কথা থাকলেও সময়টি এগিয়ে এনে রাত ৯টার দিকে নির্ধারণ করা হয়েছে।
এতে ১০ দিন ধরে চলা অসহনীয় যানজট থেকে কিছুটা মুক্তি মিলবে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের চলাচলকারী যাত্রীদের।

বিআরটি-এর প্রকল্প পরিচালক (সেতু বিভাগ) মো. মহিরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গত ৯ নভেম্বর রাত তিনটার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের টঙ্গীর তুরাগ নদের ওপর টঙ্গী সেতুর পুরোনো স্ল্যাব ড্যামেজ থাকায় হঠাৎ স্ল্যাবের কিছু অংশ ভেঙে পড়ে। এতে ঐ পথে সবধরনের যানবাহন চলাচল ধীরগতি এবং দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়ে জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে। বিআরটি কর্তৃপক্ষ ভাঙা অংশ মেরামত করে দিলে সেতুর দুই লেনে যানবাহন চলাচল শুরু হয়। পরে ঝুঁকি বিবেচনায় ঐ সেতু দিয়ে যান চলাচল পুরোদমে বন্ধ করে দিয়ে ১২ দিন সময় নেয় কর্তৃপক্ষ। সে মোতাবেক ২১ নভেম্বর সেতুতে যান চলাচল শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু জনদুর্ভোগ লাঘবে গুরুত্ব বিবেচনায় নির্দিষ্ট সময়ের আগেই সেতুটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, আজ সেতুটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেব। সেতুর যে অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল তা সংস্কার করা হয়েছে। আজ মধ্যরাতে সেতুটি খুলে দেওয়ার কথা ছিল। তবে রাত ৯টার দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ ও গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিয়ে খুলে দেব। তখন গাজীপুরের গাড়িগুলো সোজা চলাচল করবে। এরই মধ্যে সংস্কার করা অংশে একটি কিউরিং টেস্ট করিয়েছিলাম, তাও হাতে পেয়েছি। টেস্ট হাতে পাওয়ার পরই সেতুটি খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

মহিরুল ইসলাম জানান, ২০২২ সালের জানুয়ারিতে পশ্চিম অংশের নির্মাণাধীন পাঁচ লেনের সেতুটি খুলে দেওয়া হবে এবং পুরোনো সেতুটি ভেঙে সেখানে নতুন পাঁচ লেনের সেতু নির্মাণ করা হবে।