ঢাকা, শুক্রবার, ৩০শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মায়ের মুক্তির দাবিতে দুই শিশুর অবস্থান ধর্মঘট

শাশুড়িকে মারধরের মামলায় পুত্রবধূ কারাগারে। এ ঘটনায় মায়ের মুক্তির দাবিতে শনিবার সকালে প্ল্যাকার্ড হাতে ছোটভাই গালিফকে (আড়াই বছর) নিয়ে অবস্থান ধর্মঘট করেছে আলিফ (১৩)।

মামলা সূত্রে জানা যায়, জমিসংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে শাশুড়ি আলেয়া বেগম দুই ছেলে, পুত্রবধূ অনিতা জামান এবং আরো কয়েকজনের বিরুদ্ধে দুটি মামলা করেন। মামলার প্রধান আসামি অনিতা জামান গত ১৫ জুলাই আদালতে হাজির হলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এদিকে অনিতার স্বামী জুয়েল পলাতক থাকায় তার দুই সন্তান আলিফ এবং গালিফ অসহায় হয়ে পড়ে। এর মধ্যে গালিফ দুগ্ধপোষ্য। এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে আলিফ ছোটভাইকে নিয়ে শনিবার সকালে বরগুনা টাউন হল চত্বর এবং পরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান ধর্মঘট পালন করে। এ সময় সাংবাদিকদের আলিফ জানান, তার মাকে মিথ্যা মামলায় জড়ানো হয়েছে। মামলা প্রত্যাহার করে অনতিবিলম্বে মাকে মুক্তি না দিলে তারা ঘরে ফিরে যাবে না।

আলিফ এই প্রতিবেদককে বলে, বাবা পলাতক এবং মা কারাগারে থাকায় সে ছোটভাইকে দেখাশোনা করতে পারছে না। প্রতিবেশীদের দেয়া খাবার খেয়ে মায়ের মুক্তির অপেক্ষায় প্রহর গুনছে তারা।

অনিতার বিরুদ্ধে করা দুটি মামলাই ‘সম্পূর্ণ মিথ্যা’ দাবি করে আইনজীবী নজরুল ইসলাম বলেন, অনিতা জামানের জামিনের আবেদন করা হয়েছে। ভার্চুয়াল আদালতে আগামী রোববার জামিনের শুনানি হবে।

মামলার বাদী আলেয়া বেগম মুঠোফোনে বলেন, ‘প্রায় এক বছর আগে আমার স্বামী মারা যায়। এরপর আমার দুই ছেলে জুয়েল ও কামরুজ্জামান এবং তাদের স্ত্রীরা আমাকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় মেয়েকে নিয়ে আমি স্বামীর ঘরে উঠি। কিন্তু গত জুনে তারা আবারও আমাদের মারধর করে বের করে দেয়। আমি আদালতে মামলা করলে তারা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। পরে বাধ্য হয়ে আমি আরেকটি মামলা করেছি।’

এ বিষয়ে আসামি পক্ষের আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, অনিতা জামান ইচ্ছাকৃতভাবে দুগ্ধপোষ্য সন্তানকে বড় ছেলের কাছে রেখেছে। অপরাধী যেই হোক বিচার আদালত করবেন। এখানে দুই শিশু সন্তানকে ব্যবহার করে অনিতা জামান তার জামিন করাতে চাইছেন।

উল্লেখ্য উপস্থিত আইনজীবীদের আশ্বাসে দুপুরের দিকে আলিফ ভাইকে নিয়ে বাড়ি ফিরে যায়।