ঢাকা, শুক্রবার, ৩০শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফেসবুকের সিইও মার্ক জাকারবার্গের অধঃপতন!

ফেসবুক কর্মীদের কাছে জনপ্রিয়তা হারিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী (সিইও) মার্ক জাকারবার্গ। কর্মক্ষেত্র নিয়ে বিভিন্ন ধরনের গবেষণাকারী প্রতিষ্ঠান গ্লাসডোরের ২০২১ সালের ‘সেরা ১০০ সিইও’র তালিকায় জাকারবার্গের অধঃপতন সে কথাই বলছে। কর্মীদের বিচারে ‘সেরা ১০০ সিইও’র তালিকায় এবার ঠাঁই-ই পাননি জাকারবার্গ। বুধবার (১৬ জুন) বার্ষিক এ তালিকা প্রকাশ করেছে গ্লাসডোর।

২০১৩ সাল থেকে টানা এ তালিকায় ছিলেন জাকারবার্গ। এমনকি সারা বিশ্বের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সিইও বা প্রধান নির্বাহীদের মধ্যে সেরা হিসেবেও নির্বাচিত হয়েছিলেন। এই প্রথম তিনি ‘সেরা ১০০ সিইও’র তালিকা থেকে বাদ পড়লেন।

ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফেসবুকের ৭০০ জন কর্মীর ওপর এই জরিপ পরিচালনা করেছে গ্লাসডোর। ফেসবুকের ৬০ হাজার কর্মী বিবেচনায় যা খুব ছোট একটি অংশ; কিন্তু চাকরি সংক্রান্ত ওয়েবসাইট হিসেবে গ্লাসডোরের জরিপ বরাবরই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিষ্ঠানটি তাদের ওয়েবসাইটে বিশ্বের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সেরা সিইওদের র‌্যাংকিং প্রদর্শন করে থাকে। ২০১৩ সালে ‘সেরা ১০০ সিইও’র তালিকায় কর্মীদের কাছ থেকে ৯৯ শতাংশ অ্যাপ্রুভাল রেটিং নিয়ে সবার উপরে ছিলেন জাকারবার্গ।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন ঘিরে ফেসবুকের নীতি এবং করোনা মহামারির ভুল তথ্য সামাল দেওয়ার ব্যর্থতা কর্মীদের কাছে জাকারবার্গের জনপ্রিয়তা হারানোর কারণ হিসেবে মনে করা হচ্ছে।

২০২১ সালের ‘সেরা ১০০ সিইও’র তালিকায় ৯৭ শতাংশ অ্যাপ্রুভাল রেটিং নিয়ে ৬ষ্ঠ অবস্থানে রয়েছেন মাইক্রোসফটের সিইও সত্য নাদেলা এবং অ্যাপলের সিইও টিম কুক ৯৫ শতাংশ রেটিং নিয়ে ৩২তম অবস্থানে রয়েছেন। ৯৯ শতাংশ অ্যাপ্রুভাল রেটিং নিয়ে তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন বোস্টন কনসাল্টিং গ্রুপের সিইও রিচ লেসর।

সিইও হিসেবে যদিও মার্ক জাকারবার্গের বর্তমান রেটিং ৮৮ শতাংশ, যা সাধারণ সিইওদের গড় ৭৩ শতাংশ রেটিংয়ের চেয়ে বেশি; কিন্তু তা ‘সেরা ১০০ সিইও’র তালিকায় ঠাঁই পাওয়ার মতো যথেষ্ট নয়।

সেরা সিইও’র তালিকা থেকে মার্ক জাকারবার্গের বাদ পড়ার ঘটনাটি ফেসবুকে নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলবে বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ চাকরি প্রার্থীরা গ্লাসডোরের রেটিং বিবেচনায় নিয়ে কর্মস্থল খুঁজে থাকেন। ২০১৩ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ‘সেরা ১০০ সিইও’র তালিকায় থাকা একমাত্র ব্যক্তি হলেন অ্যাপলের সিইও টিম কুক।