ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

গোপালগঞ্জে দু’পক্ষের সংঘর্ষে পুলিশসহ আহত ৪০

গোপালগঞ্জে টেম্পু স্ট্যান্ডের দখলকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে পাঁচ পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছে। এ সময় কমপক্ষে ১০টি বাড়ি, দোকান ভাংচুর করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ ২০ জনকে আটক করেছে।

রোববার (১৮ এপ্রিল) দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে থেমে থেমে সদর উপজেলার শহরতলীর ঘোষেরচর উত্তরপাড়া গ্রামে সংঘর্ষ হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সংঘর্ষে আহত সোহেল খান (২৮), কিং খান (৩০), শামীম খান শাহনেওয়াজ (৩০), কোরবান মোল্যা (১৫), তুষার খান (২০), ইমামুল মোল্যা (৩৫), তৌহিদ শেখ (২৫), শামীম মোল্যা (২৫), রবিউল মোল্যা (৩০), মিটু খান (২৫), তামিম মোল্যা (২৫), নওশের আলী (৪৫) সহ ১৭ জনকে গোপালগঞ্জ ২৫০-শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকি আহতদের বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ছানোয়ার হোসেন জানান, গোপালগঞ্জ জেলা শহরের বড় বাজার এলাকার টেম্পু স্ট্যান্ড নিয়ে ঘোষেরচর উত্তরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা সুজন শেখ ও সেন্টু শেখের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে তিন দিন আগে উভয়পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এরই জের ধরে আজ দুপুরে উভয়পক্ষ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে থেমে থেমে চলা সংঘর্ষে উভয়পক্ষ ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থালে গিয়ে ১৫ রাউন্ড শটগানের গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় কমপক্ষে ১০টি বাড়ি, দোকান ভাঙচুর করা হয়।

এ সংঘর্ষে পাঁচ পুলিশ সদস্যসহ উভয়পক্ষের কমপক্ষে ৪০ জন আহত হয়েছে বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ছানোয়ার হোসেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, এ ঘটনায় পুলিশ ২০ জনকে আটক করেছে। এলাকার থমথমে অবস্থা বিরাজ করায় ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনোপক্ষই থানায় অভিযোগ দায়ের করেনি।