ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০, ১৪ কার্তিক, ১৪২৭

সরাইলে বন্ধ হচ্ছে না খাল দখল

দিন-দুপুরে খাল ভরাট,নিষ্কাশন ব্যবস্থা সচল না থাকায় অল্প বৃষ্টিতেই সরাইলে জলাবদ্ধতা-? সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে সজাগ দৃষ্টি আছে বলে জানান। সরাইল-নাসিরনগর রোড়ের পুর্বপাশে বড্ডাপাড়া খাল দখল বন্ধ হচ্ছে না। জানাযায়, সরাইলে মেঘনা- তিতাস নদীর শাখা উপজেলার প্রধান প্রধান খাল জাঙ্গালিয়া, বয়ালী, বড্ডা পাড়া, ব্যাপারী পাড়া, উচালিয়া পাড়া- বড় দেওয়ান পাড়া সহ নিজ সরাইল সংযোগ খাল, সরাইল -নাচির নগর সড়কের দুপাশে হাসপাতাল মোড় হতে কলেজ মোড় পর্যন্ত খাল দখলের এক জ্বলন্ত প্রমাণ। এমন খাল নেই যে দখল হুয়ার বাকী নেই। এ দিকে সরেজমিনে জানাযায়, জায়গাজমির দাম বেড়ে যাওয়ায় প্রভাবশালীরা প্রকাশ্যে খাল ভরাট করে পজিশন বিক্রি করছেন। অরুয়াইল হাট, সরাইল বাজার, শাহবাজপুর, পানিশ্বর বাজার,এলাকায় খাল ভরাটের প্রবণতা বেশি। বড্ডাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা নামনা বলার শর্তে বলেন, গতকয়েক দিন আগে জলাবদ্ধতায় বড্ডাপাড়া- বড়দেওয়াপাড়ার পাকা সড়ক ডুবে যায়। খাল ভরাটের বিষয়ে প্রশাসনকে ফোনে আমি বলেছি। কিন্তু খাল দখল বন্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। দখল ও ভরাটের দরুন এখন অস্তিত্ব হারিয়ে ফেলেছে সরাইলের প্রধান খাল। সরাইল উপজেলা সহকারী কমিশনার( ভৃমি) ফারজানা প্রিয়াঙ্কা এ প্রতিনিধিকে বলেন,সরকারি খাল বা জলাশয় ভরাট করতে পারবে না। যারা মাঠি ফেলে সরকারি খাল দখল করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। কাউকে কোন প্রকার ছাড় দেওয়া হবে না।সরাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ এস এম মোসা খাল দখলের ব্যপারে এ প্রতিনিধিকে বলেন, আমাকে গতকাল একজন ফোন করে বলেছে বড্ডাপাড়ার খালে মাঠি ফেলে দখলের চেষ্টা করছে। আমি এ সিল্যান্ড’কে বলেছি খুঁজ নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করতে। তিনি আরো বলেন,খালের অংশে ভরাটের দরুন বৃষ্টির পানি বাধাগ্রস্ত হওয়ায় ভাটির বাড়িঘর ও রাস্তায় দেখা দেয় জলাবদ্ধতা। সরাইলের খাল দখল মুক্ত করার জন্য শুধু প্রশাসন দিয়ে দখল মুক্ত করা যাবে না। সমাজের সচেতন অংশকেও এজন্য এগিয়ে আসতে হবে। তবে যারা সরকারি খাল দখল করবে, দখলদারদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য করুন