বৃহস্পতিবার, ২রা জুলাই, ২০২০ ইং, ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
আজ বৃহস্পতিবার | ২রা জুলাই, ২০২০ ইং

বছরের প্রথম সূর্যগ্রহণের কিছু চমক ও অজানা তথ্য

শনিবার, ২০ জুন ২০২০ | ৯:১১ পূর্বাহ্ণ | 41Views

বছরের প্রথম সূর্যগ্রহণের কিছু চমক ও অজানা তথ্য

২১ জুন হচ্ছে বছরের প্রথম সূর্যগ্রহণ। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষে একবার সূর্যগ্রহণ হয়েছিল। তাই এটাই বছরের প্রথম সূর্যগ্রহণ। এ সূর্যগ্রহণকে ‘রিং অব ফায়ার’ও বলা হচ্ছে। এ ছাড়া ২১ জুন বছরের সবচেয়ে ‘দীর্ঘতম দিন’ বলে গ্রহণটি আরও বেশি তাৎপর্যপূর্ণ। তাই আসুন জেনে নেই ২১ জুনের সূর্যগ্রহণ সম্পর্কিত বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য-

কেন সূর্যগ্রহণ হয়: সূর্যগ্রহণ তখনই হয়; যখন সূর্যের আলো পৃথিবীতে পৌঁছানোর মাঝখানে চাঁদ বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এক সরলরেখায় সূর্য ও পৃথিবীর মাঝখানে চাঁদ এসে পড়ায় তখন সূর্যগ্রহণ হয়। চাঁদের মাঝে এসে পড়ায় সূর্যের আলো পৃথিবীতে পৌঁছাতে পারে না। ফলে চাঁদের ছায়া পৃথিবী ঢেকে দেয়।

কখন হবে: ভারতে ২১ জুন সকাল সোয়া ৯টা থেকে বিকেল ৩টা ৩ মিনিট পর্যন্ত সূর্যগ্রহণ চলবে। এ আংশিক সূর্যগ্রহণ শুরু হবে সকাল ৯টা বেজে ১৫ মিনিটে। তা শিখরে পৌঁছাবে দুপুর ১২টা ১০ মিনিটে। সব মিলিয়ে গ্রহণ শেষ হতে হতে বিকেল ৩টা বেজে যাবে।

কোথা থেকে দেখবেন: সূর্যগ্রহণ শুরু হবে কঙ্গোতে, সর্বোচ্চ গ্রহণ হবে ভারতে আর গ্রহণ শেষ দেখা যাবে ফিলিপিনের আকাশে। বার্ষিক এ সূর্যগ্রহণ অন্তত এক মিনিটের জন্য হলেও দেখা যাবে ভারতের কয়েকটি জায়গা থেকে। এ ছাড়াও দক্ষিণ সুদান, ইথিওপিয়া, ইয়েমেন, ওমান, সৌদি আরব, পাকিস্তান, তিব্বত, চিন, তাইওয়ান এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে দেখা যাবে।

বাংলাদেশে কখন: আকাশ পরিষ্কার থাকলে বাংলাদেশের আকাশেও আংশিক সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। ঢাকায় কেন্দ্রীয় গ্রহণ হবে ১টা ১২ মিনিট ২৯ সেকেন্ডে, ময়মনসিংহে ১টা ১২ মিনিট ১৩ সেকেন্ডে, চট্টগ্রামে ১টা ১৭ মিনিট ৩০ সেকেন্ডে। এ ছাড়া সিলেটে ১টা ১৬ মিনিট ৫০ সেকেন্ডে, খুলনায় ১টা ৯ মিনিট ৪৫ সেকেন্ডে, বরিশালে ১টা ১২ মিনিটি ৩২ সেকেন্ডে, রাজশাহীতে ১টা ৬ মিনিটি ২৬ সেকেন্ডে এবং রংপুরে ১টা ৭ মিনিট ২০ সেকেন্ডে কেন্দ্রীয় সূর্যগ্রহণ হবে।

এবার না দেখলে: ২১ জুন সূর্যগ্রহণ দেখতে মিস করলে বা কোনো কারণে দেখার সুযোগ না পেলে অপেক্ষা করতে হবে এ বছরের ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত। কারণ ১৪ ও ১৫ ডিসেম্বর আবার একবার সূর্যগ্রহণ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

অনেক গ্রহণ: এ বছরে পরপর অনেকগুলো সূর্যগ্রহণ হওয়ার সম্ভাবনা আছে। এ বছরে প্রায় ৫ বার সূর্যগ্রহণ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশিক্ষণ সূর্যগ্রহণের সময় হতে পারে ৭ মিনিট ৫০ সেকেন্ড। যদিও এবার এত সময় ধরে গ্রহণ হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তবে পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ কখনো একইসঙ্গে উত্তর এবং দক্ষিণ মেরু থেকে দেখা সম্ভব নয়।

মানুষ যা বিশ্বাস করে: বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, সূর্যগ্রহণের সময় কিছু কাজ করা থেকে বিরত থাকা উচিত। যারা জ্যোতিষ চর্চা করেন, তারা এ ধরনের বিভিন্ন নিয়মের কথা বলেন। তবে আধুনিক বিজ্ঞানে অনেক সময় জ্যোতিষের বিভিন্ন বিধানের অর্থ খুঁজে বের করা যায় না। তবুও জ্যোতিষ থেকে শুরু করে আয়ুর্বেদের চর্চা করা বহু মানুষ এসব বিশ্বাস করে।

রান্না না করা: গ্রহণের সময় রান্না না করার পরামর্শ দেওয়া হয়। তবে যে মানুষ অসুস্থ, ক্লান্ত অথবা বৃদ্ধ- তাদের একান্তই সম্ভব না হলে পানি, ডাবের পানি অথবা এ জাতীয় তরল খাবার দেওয়া যেতে পারে। তবে ভারী খাবার দিতে না বলা হয়।

খাওয়া থেকে বিরত: ভারতে এ চর্চা বহুদিন ধরে চলে আসছে যে, সূর্যগ্রহণের সময় না খাওয়াই ভালো। কারণ এ সময় সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মির কারণে মানুষের শরীরে নানা অসুবিধা তৈরি হতে পারে।

খালি চোখে না দেখা: সূর্যগ্রহণের সময় খালি চোখে আকাশের দিকে তাকাবেন না। এক্ষেত্রে অবশ্যই সানগ্লাস, প্রোজেক্টর, টেলিস্কোপ ব্যবহার করুন। তা না করলে দৃষ্টিশক্তি আঘাতপ্রাপ্ত হতে পারে। এ বিষয়ে আধুনিক বিজ্ঞানও সতর্ক করেছে।

-Advertisement-
সর্বশেষ  
জনপ্রিয়  

ফেইসবুক পাতা

-Advertisement-
-Advertisement-