ক্রীড়াঙ্গন

র‌্যাঙ্কিংয়ের ছয়ে ওঠার সুযোগ বাংলাদেশের সামনে

টেস্ট সিরিজের যাচ্ছেতাই পারফরম্যান্সের ধাক্কা সামলে ওঠার লক্ষ্যে ওয়ানডেতে ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখছে বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে টাইগাররা। ৫০ ওভারের ম্যাচে ভালো পারফরম্যান্স উপহার দিতে পারলে র‌্যাঙ্কিংয়ে এক ধাপ এগিয়ে ছয় নম্বরে উঠতে পারবে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।

দক্ষিণ আফ্রিক ও বাংলাদেশের মধ্যকার ওয়ানডে সিরিজের পাশাপাশি প্রায় একই সময়ে ৫০ ওভারের সিরিজ খেলবে শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তান। এরপর মাঠে নামবে নিউজিল্যান্ড ও ভারত। ফলে এই তিনটি সিরিজ শেষে র‌্যাঙ্কিংয়ে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আসতে পারে।

দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে বাংলাদেশের যেমন উন্নতি করার সুযোগ রয়েছে ঠিক তেমনি পারফরম্যান্স বাজে হলে অবনতির সম্ভাবনাও রয়েছে টাইগারদের। অবশ্য বাজে পারফরম্যান্সের জন্য রেটিং পয়েন্ট হারালেও সাত নম্বর অবস্থান আপাতত ধরে রাখতে পারবে বাংলাদেশ। পাকিস্তান শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অপ্রতিরোধ্য পারফরম্যান্স উপহার দিলে র‌্যাঙ্কিংয়ে তাদের উন্নতি ঘটবে। অবশ্য র‌্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি ঘটাতে হলে পাকিস্তানকে ওয়ানডে সিরিজে ৫-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ করতে হবে।

বাংলাদেশ যদি দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২-১ ব্যবধানে ওয়ানডে সিরিজে পরাজিত করতে পারে এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বিপক্ষে ৩-২ এর বেশি ব্যবধানে পাকিস্তান জয় না পায় তবে পাকিস্তানকে টপকে ছয় নম্বরে ওঠে আসবে বাংলাদেশ। আপাতত ৯৪ পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশ সাতে এবং ৯৫ পয়েন্ট নিয়ে পাকিস্তান রয়েছে ছয় নম্বরে। আট নম্বরে থাকা শ্রীলঙ্কার পয়েন্ট ৮৬। পাকিস্তান ৫-০ ব্যবধানে শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশ করলেও র‌্যাঙ্কিংয়ের ছয় নম্বরেই থাকবে।

দক্ষিণ আফ্রিকা সম্প্রতি ভারতের কাছে ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের শ্রেষ্ঠত্ব হারায়। বাংলাদেশের বিপক্ষে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেলেই ভারতের সমান ১২০ পয়েন্ট ভগ্নাংশের ব্যবধানে এগিয়ে থেকে শীর্ষে জায়গা করে নেবে প্রোটিয়ারা। অন্যদিকে বাংলাদেশকে ৩-০ ব্যবধানে হারাতে পারলে ১২১ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ওঠে যাবে ডি ভিলিয়ার্স-হাশিম আমলার দল।

অবশ্য তারপরও দক্ষিণ আফ্রিকাকে স্বস্তিতে থাকতে দেবে না ভারত। ২২ আগস্ট সিরিজের শেষ ওয়ানডেতে বাংলাদেশের মুখোমুখি হবে প্রোটিয়ারা। একইদিন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতে খেলতে ভারত। দক্ষিণ আফ্রিকা বাংলাদেশকে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়ে ১২১ রেটিং পয়েন্ট অর্জন করলেও নিউজিল্যান্ডকে হারালে পারলে সমান পয়েন্ট সত্ত্বেও ভগ্নাংশের ব্যবধানে এগিয়ে থেকে শীর্ষেই থাকবে ভারত।

অবশ্য নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ভালো করতে না পারলে শীর্ষস্থান হারাতে ভারত। দক্ষিণ আফ্রিকা যদি বাংলাদেশকে ৩-০ ব্যবধানে পরাজিত করে তবে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে একই ব্যবধানে সিরিজ জিততে না পারলে শীর্ষস্থান হারাবে টিম ইন্ডিয়া।

আসুন দেখে নেয়া যাক আসন্ন বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা এবং পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা সিরিজ পরবর্তী র‌্যাঙ্কিংয়ের পরিবর্তন:

বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ:

বাংলাদেশকে যদি দক্ষিণ আফ্রিকা ৩-০ ব্যবধানে পরাজিত করে তবে বাংলাদেশের পয়েন্ট কমে ৯২-তে নেমে যাবে; অন্যদিকে দক্ষিণ আফ্রিকার পয়েন্ট হবে ১২১।

যদি বাংলাদেশ ২-১ ব্যবধানে পরাজিত হয় তবে টাইগারদের পয়েন্ট ৯৫’ই থাকবে; তবে দক্ষিণ আফ্রিকার পয়েন্ট কমে ১১৭-তে নেমে যাবে।

বাংলাদেশ যদি দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২-১ ব্যবধানে পরাজিত করে তবে টাইগারদের পয়েন্ট হবে ৯৭ এবং দক্ষিণ আফ্রিকার পয়েন্ট ১১৭-তে নেমে যাবে।

বাংলাদেশ যদি দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৩-০ ব্যবধানে পরাজিত করে তবে মাশরাফিদের রেটিং পয়েন্ট ১০০-তে উন্নীত হবে। দক্ষিণ আফ্রিকার পয়েন্ট কমে ১১৫-তে নেমে যাবে।

পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা সিরিজের সিনারিও:

পাকিস্তান শ্রীলঙ্কাকে ৫-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ করলে পাকিস্তানের রেটিং পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়াবে ৯৯ এবং শ্রীলঙ্কার কমে ৮৩-তে নেমে যাবে।
পাকিস্তান যদি শ্রীলঙ্কাকে ৪-১ ব্যবধানে পরাজিত করে তবে পাকিস্তানের রেটিং পয়েন্ট ৯৭ এবং শ্রীলঙ্কার হবে ৮৫।

পাকিস্তান যদি শ্রীলঙ্কাকে ৩-২ ব্যবধানে পরাজিত করে তবে পাকিস্তানের পয়েন্ট ৯৫’ই থাকবে। শ্রীলঙ্কার পয়েন্টও যথারীতি ৮৬ থাকবে।

শ্রীলঙ্কা যদি পাকিস্তানকে ৩-২ ব্যবধানে পরাজিত করে তবে শ্রীলঙ্কার পয়েন্ট বেড়ে ৮৮-তে উন্নীত হবে আর পাকিস্তানের পয়েন্ট কমে ৯৩-তে নেমে যাবে।

শ্রীলঙ্কা যদি পাকিস্তানকে ৪-১ ব্যবধঅনে পরাজিত করে তবে শ্রীলঙ্কার পয়েন্ট বেড়ে ৮৯-তে উন্নীত হবে। অন্যদিকে পাকিস্তানের পয়েন্ট কমে ৯১-তে নেমে যাবে।

শ্রীলঙ্কা যদি পাকিস্তানকে ৫-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ করে তবে শ্রীলঙ্কার পয়েন্ট ৯১ এবং পাকিস্তানের পয়েন্ট হবে ৮৯।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *